বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ২ মাস ধরে তাণ্ডব চালাচ্ছে হনুমান, বাইরে বের হতে ভয় পাচ্ছেন বাসিন্দারা
হনুমান ধরার জন্য পাতা হয়েছে খাঁচা। নিজস্ব ছবি।

২ মাস ধরে তাণ্ডব চালাচ্ছে হনুমান, বাইরে বের হতে ভয় পাচ্ছেন বাসিন্দারা

  • পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ও বনদফতরের কর্মীরা গত দু'মাসে বহুবার এসেছেন হনুমান ধরতে। কিন্তু, সঠিক প্রশিক্ষণ না থাকার জন্য তারা হনুমানটি ধরতে পারছে না বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। স্থানীয় মানুষজন এতটাই আতঙ্কিত যে বাড়ি থেকে বের হলেও হাতে লাঠি নিয়ে বের হচ্ছেন।

লাগাতার দু’মাস ধরে পাগল হনুমানের তাণ্ডব! কখনও কামড়ে দিচ্ছে, আবার কখনও বসিয়ে দিচ্ছে চড় থাপ্পর। দু’মাস ধরে হনুমানের তাণ্ডবে কার্যত বাড়ির বাইরে বেরোতেই ভয় পাচ্ছেন আসানসোলের জামুড়িয়ার চাঁদা গ্রামের বাসিন্দারা। হনুমানের কামড়ে এখনও পর্যন্ত আহত হয়েছেন শতাধিক মহিলা ও পুরুষ। এই অবস্থায় হনুমানটিকে দ্রুত ধরার দাবি জানালেন স্থানীয় বাসিন্দরা। গতকাল এই দাবিতে প্রায় আধঘন্টা রাস্তা অবরোধ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পাশাপাশি, গ্রামে স্বাস্থ্য শিবির তৈরি করারও দাবি জানিয়েছেন তারা।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, গত দু’মাস ধরে হনুমানটি ওই এলাকায় তাণ্ডব চালাচ্ছে। বাড়ি থেকে বের হলে কামড় বা আঁচড়ে দিচ্ছে হনুমানটি। পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ও বনদফতরের কর্মীরা গত দু'মাসে বহুবার এসেছেন হনুমান ধরতে। কিন্তু, সঠিক প্রশিক্ষণ না থাকার জন্য তারা হনুমানটি ধরতে পারছে না বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। স্থানীয় মানুষজন এতটাই আতঙ্কিত যে বাড়ি থেকে বের হলেও হাতে লাঠি নিয়ে বের হচ্ছেন। এমনকি গত দু’মাস ধরে শিশুরা কার্যত গৃহবন্দী অবস্থায় রয়েছে বলে স্থানীয়দের একাংশের দাবি।

যদিও পশুপ্রেমী সংগঠনের সদস্য সৌরভ মুখার্জী জানান, হনুমানটিকে ধরার জন্য বনদফতরের সঙ্গে তারাও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সম্ভবত ওই হনুমানটি মানসিক ভারসাম্যহীন। সেই কারণে এই তাণ্ডব চালাচ্ছে। যখনই হনুমানটিকে ধরার জন্য চেষ্টা চালানো হচ্ছে তখনই সেটি জঙ্গলের মধ্যে কোনও গাছের মধ্যে লুকিয়ে পড়ছে। বনদফতরের আধিকারিক কৃষ্ণা পাসোয়ান জানান, তারা বহু হনুমান এর আগে ধরেছেন। কিন্তু, এই হনুমানটিকে কিছুতেই বাগে আনা সম্ভব হচ্ছে না। মোট ১২ জন বনকর্মী গত পাঁচ দিন ধরে হনুমানটিকে ধরার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

বন্ধ করুন