বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Dhupgudi: কাজের প্রলোভন দেখিয়ে নাবালিকাদের পাচার! স্থানীয়দের তৎপরতায় গ্রেফতার পাচারকারী
নাবালিকা পাচারের অভিযোগে গ্রেফতার যুবক। প্রতীকী ছবি

Dhupgudi: কাজের প্রলোভন দেখিয়ে নাবালিকাদের পাচার! স্থানীয়দের তৎপরতায় গ্রেফতার পাচারকারী

  • সে ময়নাগুড়ি স্টেশন রোড এলাকার বাসিন্দা। দুই নাবালিকার সঙ্গে তাদের পরিচয় হয়েছিল ফোনে। এরপর তারা নাবালিকাদের মুম্বইয়ে কাজের প্রলোভন দেখিয়ে নিয়ে যাচ্ছিল। সম্প্রতি ডুয়ার্সের বিভিন্ন জায়গায় কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ভিন রাজ্যে নিয়ে গিয়ে নাবালক নাবালিকাদের পাচারের অভিযোগ সামনে এসেছে।

কাজের প্রলোভন দেখিয়ে দুই নাবালিকাকে ভিন রাজ্যে পাচার করার জন্য নিয়ে যাচ্ছিল পাচারকারীরা। তবে স্থানীয়দের তৎপরতায় পাচারকারীদের সেই উদ্দেশ্য বানচাল হল। এই ঘটনায় এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সেইসঙ্গে ২ নাবালিকাকেউ উদ্ধার করেছে। জলপাইগুড়ির ধুপগুড়ি স্টেশন থেকে ওই ২ নাবালিকাকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, গতকাল রাত ১১ টা পর্যন্ত ধুপগুড়ি স্টেশনের কাছে উদ্দেশ্যহীনভাবে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় দুই নাবালিকাকে। তাদের সঙ্গে দুই যুবকও ছিল। সন্ধ্যার সময় নাবালিকারা সেখানে এসেছিল। পরে রাতের দিকে ২ যুবক সেখানে আসে। দীর্ঘক্ষণ সেখানে তাদের দেখে প্লাটফর্মের হকাররা তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা জানায় যে তারা কাজের জন্য মুম্বই যাচ্ছে। নাবালিকারা আরও জানায় যে তারা স্বেচ্ছাতেই সেখানে যাচ্ছে। এরপর তাদের সঙ্গে থাকা এক যুবকের সঙ্গে কথা বলেন হকাররা। তাদের কথায় অসঙ্গতি খুঁজে পাওয়ায় হকাররাই পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। এরই মধ্যে এক যুবক সেখান থেকে পালিয়ে যায়। পুলিশ ধীরাজ নামে এক যুবক ও দুই নাবালিকাকে থানায় নিয়ে যায়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, যে যুবক ধরা পড়েছে তার নাম ধীরাজ। সে ময়নাগুড়ি স্টেশন রোড এলাকার বাসিন্দা। দুই নাবালিকার সঙ্গে তাদের পরিচয় হয়েছিল ফোনে। এরপর তারা নাবালিকাদের মুম্বইয়ে কাজের প্রলোভন দেখিয়ে নিয়ে যাচ্ছিল। সম্প্রতি ডুয়ার্সের বিভিন্ন জায়গায় কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ভিন রাজ্যে নিয়ে গিয়ে নাবালক নাবালিকাদের পাচারের অভিযোগ সামনে এসেছে। সেক্ষেত্রে ওই দুই নাবালিকাকে কাজের প্রলোভন দেখিয়ে পাচার করা হচ্ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। পাশাপাশি এই ঘটনায় কোনও পাচারচক্র জড়িত রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছে। দুই নাবালিকার পরিবারের সঙ্গেও যোগাযোগ করছে পুলিশ।

বন্ধ করুন