বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Jalpaiguri: পোস্টমাস্টারের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে ঘিরে দানা বেঁধেছে রহস্য, তদন্তে পুলিশ
পোস্ট মাস্টারের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার (প্রতীকী ছবি)

Jalpaiguri: পোস্টমাস্টারের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে ঘিরে দানা বেঁধেছে রহস্য, তদন্তে পুলিশ

  • তাঁর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ ওঠায় তাকে সাসপেন্ড করা হয়। বর্তমানে তিনি সাসপেন্ড অবস্থাতেই রয়েছেন। বেশ কয়েক বছর আগেই স্বামীর সঙ্গে তাঁর বিবাহ বিচ্ছেদও হয়েছে। বর্তমানে তিনি মেয়ের সঙ্গে থাকেন। তাঁর মেয়ে অন্বেষা ভৌমিক জানান, পাশের ঘরে তিনি মোবাইল দেখছিলেন।

ভারতীয় ডাক বিভাগের এক পোস্টমাস্টারের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে রহস্য দানা বেঁধেছে। মৃতার নাম রত্না সরকার ভৌমিক (৪৫)। জলপাইগুড়ির আশ্রমপাড়ায় একটি বাড়িতে ভাড়া ছিলেন। সেখান থেকেই তাঁর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয় ঘটনাস্থল থেকে একটি সুইসাইড নোট উদ্ধার করেছে পুলিশ। তারপরেও তার মৃত্যুর কারণ নিয়ে ধোঁয়াশার মধ্যে রয়েছেন তদন্তকারীরা। তাঁর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে কোতোয়ালি থানার পুলিশ।

জানা গিয়েছে, তিনি ভারতীয় ডাক বিভাগের পোস্টমাস্টার পদে কর্মরত ছিলেন। কিন্তু, তাঁর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ ওঠায় তাকে সাসপেন্ড করা হয়। বর্তমানে তিনি সাসপেন্ড অবস্থাতেই রয়েছেন। বেশ কয়েক বছর আগেই স্বামীর সঙ্গে তাঁর বিবাহ বিচ্ছেদও হয়েছে। বর্তমানে তিনি মেয়ের সঙ্গে থাকেন। তাঁর মেয়ে অন্বেষা ভৌমিক জানান, পাশের ঘরে তিনি মোবাইল দেখছিলেন। মাকে খাওয়ার জন্য ডাকতে গিয়ে তিনি দেখতে পান এই ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাস্থল থেকে যে সুইসাইড নোট পাওয়া গিয়েছে তাতে মৃত্যুর জন্য কাউকেই দায়ী করেননি রত্না ভৌমিক। তবে পাশের ঘরে থাকা সত্ত্বেও মেয়ে কীভাবে এই ঘটনার টের পেলেন না তাই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

এ প্রসঙ্গে স্থানীয় কাউন্সিলর দীনেশ রাউত জানান, ‘তিন মাস আগে ওই মহিলা মেয়ের সঙ্গে এখানে এসেছিলেন। পারিবারিক কোনও সমস্যা ছিল বলে জানতে পেরেছি। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পরে মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে।’ প্রতিবেশীরা জানাচ্ছেন, এলাকার লোকেদের সঙ্গে খুব বেশি কথা বলবেন না রত্না দেবী। তারা বেশিরভাগ সময় বাড়িতেই থাকতেন। তবে মাঝেমধ্যেই তাদের বাড়িতে একজন লোক যাতায়াত করতেন। তিনি কে ছিলেন তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

বন্ধ করুন