বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Purba Bardhaman: আলুর বস্তার আড়ালে শব্দবাজি! লরি থেকে উদ্ধার ১৫০ বস্তা নিষিদ্ধ শব্দবাজি
উদ্ধার প্রচুর পরিমাণে নিষিদ্ধ শব্দবাজি। প্রতীকী ছবি।

Purba Bardhaman: আলুর বস্তার আড়ালে শব্দবাজি! লরি থেকে উদ্ধার ১৫০ বস্তা নিষিদ্ধ শব্দবাজি

  • গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গতকাল কালনা থানার পুলিশ মতিশ্বর বাজার এলাকায় নাকা চেকিং চালায়। সেখানে আলু বোঝায় একটি লরি দেখে সন্দেহ হয় পুলিশের। এরপরই পুলিশ লরিটিকে আটকায়। লরির উপরে ছিল কিছু আলুর বস্তা। সেই আলুর বস্তা সরাতেই চক্ষু চড়কগাছ পুলিশের।

পুজোর মুখে প্রচুর পরিমাণে নিষিদ্ধ বাজি উদ্ধার করল পুলিশ। আলুর বস্তার আড়ালে লরিতে করে এই নিষিদ্ধ শব্দবাজি পাচার করা হচ্ছিল। ওই লরি থেকে প্রায় ১৫০ বস্তা নিষিদ্ধ শব্দবাজি উদ্ধার হয়েছে। ঘটনাটি পূর্ব বর্ধমানের কালনার। লরিটিকে আটক করার পাশাপাশি চালককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গতকাল কালনা থানার পুলিশ মতিশ্বর বাজার এলাকায় নাকা চেকিং চালায়। সেখানে আলু বোঝাই একটি লরি দেখে সন্দেহ হয় পুলিশের। এরপরই পুলিশ লরিটিকে আটকায়। লরির উপরে ছিল কিছু আলুর বস্তা। সেই আলুর বস্তা সরাতেই চক্ষু চড়কগাছ পুলিশের। লরি থেকে উদ্ধার হয় ১৫০ বস্তা নিষিদ্ধ শব্দবাজি। মনে করা হচ্ছে, পুলিশের চোখে ধুলো দিতেই শব্দবাজির উপরে আলুর বস্তা রাখা হয়েছিল। প্রাথমিকভাবে পুলিশ জানতে পেরেছে পুরুলিয়ার দিকে যাচ্ছিল লরিটি। তবে কোথা থেকে এই শব্দবাজি আনা হয়েছিল তা এখনও জানা যায়নি।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথমে নাকা চেকিং চালানোর সময় লরিতে আলুর বস্তা রয়েছে ভেবে ছেড়ে দিয়েছিল পুলিশ। কিন্তু, চালকের চোখ মুখ দেখে সন্দেহ হয় পুলিশের। পরে আবার লরিটিকে থামিয়ে আলুর বস্তা সরাতেই এই প্রচুর পরিমাণ বাজি বেরিয়ে আসে। ঘটনায় লরিটিকে থানায় নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি লরি চালককে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতকে আদালতে তোলা হলে তার পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। নিষিদ্ধ শব্দবাজি কোথায় থেকে নিয়ে আসা হয়েছিল? কোথায় তা সরবরাহ করার কথা ছিল? এই সমস্ত বিষয়ে তথ্য জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। এর পাশাপাশি আরও নিষিদ্ধ শব্দবাজি নিয়ে আসা হচ্ছে কিনা তাও জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

বন্ধ করুন