বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > করোনা–কালেও কর্মসংস্থান: তাজপুরে নতুন বন্দর, দিঘায় কেব্‌ল ল্যান্ডিং স্টেশন
নবান্ন সভাগৃহে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার। ছবি সৌজন্য : এএনআই
নবান্ন সভাগৃহে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার। ছবি সৌজন্য : এএনআই

করোনা–কালেও কর্মসংস্থান: তাজপুরে নতুন বন্দর, দিঘায় কেব্‌ল ল্যান্ডিং স্টেশন

  • ক্যাবিনেট বৈঠকে নেওয়া আর এক সিদ্ধান্তের ব্যাপারেও এদিন জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার পোশাকি নাম— ‌ওয়েস্টবেঙ্গল স্টেট ব্রডব্যান্ড পলিসি ২০২০।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও নতুন কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে একগুচ্ছ পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার নবান্ন সভাগৃহে সাংবাদিক বৈঠকে তিনি ক্যাবিনেট বৈঠকে নেওয়া কিছু সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি এদিন তাজপুরে নতুন বন্দর তৈরির কথা ঘোষণা করেন। একইসঙ্গে জানান দিঘায় তৈরি হচ্ছে কেব্‌ল ল্যান্ডিং স্টেশন। আর তাতে প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা লগ্নি করছে জিও।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, ‘‌অনেকদিন ধরে আমরা তাজপুরে নতুন বন্দর তৈরি করার চেষ্টা করছি। আমরা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদনও জানিয়েছিলাম। কিন্তু তাতে তারা কোনও আগ্রহ দেখায়নি। শেষে করেওনি। গঙ্গাসাগরে লোহার সেতু করে দেওয়ার কথা বললে তাও করেনি। আমরা তাই ঠিক করেছি, তাজপুরে যে বন্দরটি হবে সেটা রাজ্য সরকারই তৈরি করবে। একার দ্বারা সম্ভব নয়, তাই টেন্ডারও ডাকা হবে।’‌

বন্দরটি তৈরি হলে যে তা রাজ্যের উন্নয়নের মুকুটে একটা বড় পালক যোদ করবে তা উল্লেখ করেন মুখ্যমন্ত্রী। সঙ্গে জানান, এই বন্দর তৈরি হলে অনেক চাকরির সম্ভাবনা তৈরি হবে। আমদানি–রপ্তানির ব্যবসা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে অর্থনৈতিক উন্নতিও হবে।

এর পরই মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন,‌ ‘দিঘায় তৈরি হচ্ছে কেব্‌ল ল্যান্ডিং স্টেশন। এতে জিও প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা লগ্নি করেছে। এখানে মোবাইল নেটওয়ার্ক নিয়ে কাজ হবে। মোবাইলের যন্ত্রাংশও তৈরি করা হবে। এ ক্ষেত্রেও বহু কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে।’‌

ক্যাবিনেট বৈঠকে নেওয়া আর এক সিদ্ধান্তের ব্যাপারেও এদিন জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার পোশাকি নাম— ‌ওয়েস্টবেঙ্গল স্টেট ব্রডব্যান্ড পলিসি ২০২০। তবে এর ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

বন্ধ করুন