বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পণের দাবিতে অন্তঃসত্ত্বা বধূকে বালিশ চাপা দিয়ে খুনের অভিযোগ
নিহত রেহানা পারভিনের আধার কার্ড। 
নিহত রেহানা পারভিনের আধার কার্ড। 

পণের দাবিতে অন্তঃসত্ত্বা বধূকে বালিশ চাপা দিয়ে খুনের অভিযোগ

  • এরপর দত্তপুকুর থানায় শ্বশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে রেহেনার পরিবার। অভিযোগ করতে গিয়ে পুলিশি হয়রানির শিকার হতে হয়েছে বলে দাবি করেছে মৃতের পরিবার।

ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বাকে বালিস চাপা দিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। পণের দাবিতে খুন বলে অভিযোগ পরিবারের। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার দত্তপুকুর থানার ছোট জাগুলিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতে তেঁতুলিয়া গ্রামে।

তেঁতুলিয়া গ্রামের বাসিন্দা বছর ২৯-এর রেহেনা পারভিনের সাথে গত দু'বছর আগে বিবাহ হয়েছিল কদম্বগাছি ইসলামপুর এলাকার বছর ৩১-এর রিয়াজুল ইসলামের। অভিযোগ বিয়ের সময় রিয়াজুলকে ১ লক্ষ টাকা নগদ পণ দিয়েছিল রেহেনার পরিবার। কিন্তু তাঁর পরেও বিভিন্ন সময় পণের জন্য মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার চালানো হতো রেহেনার উপর।

গত কয়েক মাস ধরে বধূর বাপের বাড়ির কাছে গাড়ি কিনে দেওয়ার দাবি জানিয়ে লাগাতার অত্যাচার চালানো হচ্ছিল রেহেনার উপর। বুধবার অশান্তি পৌঁছায় চরম পর্যায়ে। তারপরই রেহানাকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পরিবারের। রাতে পরিবারের সদস্যরা রেহেনাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। 

এরপর দত্তপুকুর থানায় শ্বশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে রেহেনার পরিবার। অভিযোগ করতে গিয়ে পুলিশি হয়রানির শিকার হতে হয়েছে বলে দাবি করেছে মৃতের পরিবার।

রাতে অভিযুক্ত স্বামী, শাশুড়িকে পুলিশ গ্রেফতার করতে গেলে এলাকার মানুষজন অভিযুক্তদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখায়। অভিযুক্তদের গ্রেফতার করার পর দত্তপুকুর থানা পুলিশ এসে মৃতের পরিবারের সদস্যদের হুমকি দিয়েছে বলেও অভিযোগ।

 

বন্ধ করুন