বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > TET scam: প্রাথমিকে চাকরি দেওয়ার নামে ১ কোটি টাকা প্রতারণা, গ্রেফতার স্কুল শিক্ষক
চাকরির নামে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার স্কুল শিক্ষক। প্রতীকী ছবি

TET scam: প্রাথমিকে চাকরি দেওয়ার নামে ১ কোটি টাকা প্রতারণা, গ্রেফতার স্কুল শিক্ষক

  • কারও কাছ থেকে ৮ লক্ষ আবার কারও কাছ থেকে ১০ লক্ষ টাকা হাতিয়েছিলেন। এইভাবে প্রায় এক কোটি টাকা প্রতারণা করেছেন বলে অভিযোগ প্রার্থীদের। তাদের আরও অভিযোগ, নিজেকে প্রভাবশালী বলে দাবি করেছিলেন ওই শিক্ষক এবং সেই দাবি করেই বহু প্রার্থীর কাছে তিনি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। 

এসএসসিতে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি প্রকাশ্যে আসতেই রাজ্যজুড়ে টাকার বিনিময়ে চাকরি দেওয়ার অভিযোগ সামনে আসছে। রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় গ্রেফতার হওয়ার পরেই বিভিন্ন জায়গা অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এবার কোচবিহারের এক প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষকের বিরুদ্ধে চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক কোটি টাকা প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। এই অভিযোগে ওই স্কুল শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃত শিক্ষকের নাম পিন্টু শেখ।

জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত কোচবিহারের হলদিবাড়ির একটি প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক। ২০১৪ সালের বেশ কিছু টেট প্রার্থীর কাছ থেকে তিনি চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা তুলেছিলেন বলে অভিযোগ। কারও কাছ থেকে ৮ লক্ষ আবার কারও কাছ থেকে ১০ লক্ষ টাকা হাতিয়েছিলেন। এইভাবে প্রায় এক কোটি টাকা প্রতারণা করেছেন বলে অভিযোগ প্রার্থীদের। তাদের আরও অভিযোগ, নিজেকে প্রভাবশালী বলে দাবি করেছিলেন ওই শিক্ষক এবং সেই দাবি করেই বহু প্রার্থীর কাছে তিনি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। কিন্তু, নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরেও চাকরি না পাওয়ায় টাকা ফেরত চান প্রার্থীরা। অবশেষে টাকা ফেরত না পেয়ে প্রার্থীদের কয়েকজন থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তার ভিত্তিতে ওই শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আমজাদ হোসেন নামে এক প্রার্থীর অভিযোগ, ‘২০১৮ সালে হলদিবাড়ি স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষক হয়ে আসেন পিন্টু শেখ। তিনি আমাদের বলেছিলেন যে শিক্ষামন্ত্রী, প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের চেয়ারম্যান এবং অফিসারদের সঙ্গে আমার ভালো যোগাযোগ রয়েছে। আমি তোমাদের চাকরি পাইয়ে দেব।’ ওই প্রার্থীর অভিযোগ, তার কাছ থেকে ৯ লক্ষ টাকা নিয়েছিলেন ওই শিক্ষক। পরে ২০২০ সালে তারা জানতে পারেন যে তারা প্রতারিত হয়েছেন। যদিও এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন শিক্ষক। তার দাবি, ‘আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করা হয়েছে। আমাকে ফাঁসানো হয়েছে’। ধৃত শিক্ষককে আদালতে তোলা হলে বিচারক তার ১০ দিনের পুলিশ হেফাজতের নিজের দিয়েছেন।

বন্ধ করুন