বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > এক ফ্রেমে কুণাল-দিলীপ, হোয়াটসঅ্যাপে ঘোষেদের 'সখ্যতা' নিয়ে খোঁচা সৈমিত্রর
কুণাল ঘোষের সঙ্গে দিলীপ ঘোষ এবং সৌমিত্র খাঁ
কুণাল ঘোষের সঙ্গে দিলীপ ঘোষ এবং সৌমিত্র খাঁ

এক ফ্রেমে কুণাল-দিলীপ, হোয়াটসঅ্যাপে ঘোষেদের 'সখ্যতা' নিয়ে খোঁচা সৈমিত্রর

  • ফের বিস্ফোরক সৈমিত্র খাঁ। এবার নিজের হোয়াটসঅ্যাপের ডিপি হিসেবে কুণাল-দিলীপের ছবি লাগালেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ।

ফের বিস্ফোরক সৈমিত্র খাঁ। এবার নিজের হোয়াটসঅ্যাপের ডিপি হিসেবে কুণাল-দিলীপের ছবি লাগান বিষ্ণুপুরের সাংসদ। দুই দলের দুই ঘোষের 'সখ্যতা' নিয়ে খোঁচা দিতেই তাঁদের ছবি লাগানো কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অবশ্য সৌমিত্র দাবি করেন, যে নম্বরে এই কাণ্ড হয়েছে তা নাকি তাঁর অফিসিয়াল নম্বর নয়। বদনাম করার জন্যেই নাকি এহেন কাজ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে এক বিয়ের অনুষ্ঠানে দেখা গিয়েছিল কুণাল ঘোষ এবং দিলীপ ঘোষকে। সেখানে দুই নেতাকে বেশ কিছুক্ষণ কথা বলতে দেখা যায়। পরবর্তীতে সোশ্যাল মিডিয়াতে সেই বিয়েবাড়ির ছবিগুলি ভাইরাল হয়। সেই ছবি কেন হঠাত্ ডিপি করলেন বিজেপি সাংসদ? সংবাদমাধ্যমে খবরটি প্রকাশিত হতেই ডিপি বদল হয় সেই নম্বরের। পরে বিজেপি সাংসদ দাবি করেন, তিনি এই ছবি বদল করেননি, এটি তাঁর অফিসিয়াল নম্বর নয়।

উল্লেখ্য, এর আগে ফেসবুকে দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এবং বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে আক্রমণ করেছিলেন সৌমিত্র খাঁ। পাশাপাশি যুব মোর্চার সভাপতি পদ থেকেও পদত্যাগ করেছিলেন তিনি। যদিও পরে সেদিনই নিজের ইস্তফা প্রত্যাহার করে নেন সৌমিত্র। তবে বিতর্ক যেন থামার নাম নেই। এই ডিপি বদলের মাধ্যমে যেন বার্তা দেওয়ার চেষ্টা হল যে, যেখানে নিচু তলার কর্মীরা মার খাচ্ছে, সেখানে উঁচু তলার নেতারা ঠিকই অন্য দলের সঙ্গে সখ্যতা বজায় রেখেছে।

এদিকে রাজ্য বিজেপির সহসভাপতি বিশ্বপ্রিয় রায়চৌধুরী পাশে দাঁড়ালেন সৌমিত্র খাঁয়ের। তাঁর দাবি, সৌমিত্র খাঁ দলের শৃঙ্খলা ভাঙেননি। উনি যেটা করেছেন সেটা আবেগে করেছেন। তাই, তাঁর বিরুদ্ধে শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি কোনও ব্যবস্থা নেয়নি।

 

বন্ধ করুন