বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ইসিএলের নিরাপত্তারক্ষীকে খুন করল দুষ্কৃতীরা, কয়লা চুরি রুখতেই কুপিয়ে হত্যা
খুন হয়ে গেলেন ইসিএলের নিরাপত্তারক্ষী। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
খুন হয়ে গেলেন ইসিএলের নিরাপত্তারক্ষী। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

ইসিএলের নিরাপত্তারক্ষীকে খুন করল দুষ্কৃতীরা, কয়লা চুরি রুখতেই কুপিয়ে হত্যা

  • এলাকারই বেশ কয়েকজন কয়লা চোর বাধা পেয়ে এই খুন করেছে। তারা ওই নিরাপত্তারক্ষীকে কয়লা কাটার গাঁইতি দিয়ে কুপিয়ে খুন করেছে বলে প্রাথমিক অনুমান।

কয়লা পাচার কাণ্ড নিয়ে তৎপর হতে দেখা গিয়েছে ইডি–সিবিআইকে। এই পরিস্থিতিতে এবার কয়লা চুরি রুখতে গিয়ে খুন হয়ে গেলেন ইসিএলের নিরাপত্তারক্ষী। দুষ্কৃতীরা তাঁকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন করে বলে অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে রানিগঞ্জের কুনুস্তোডিয়া এরিয়ার বাঁশরা ওসিপি এলাকায়। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই তোলপাড় হয়ে গিয়েছে রাজ্য।

পুলিশ সূত্রে খবর, মৃত নিরাপত্তারক্ষীর নাম মনোজ চৌহান (‌৩১)‌। তিনি অন্ডাল থানার জামবাদ বেনিয়াডিহি এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। ইসিএলের রেলওয়ে সাইডিংয়ের নিরাপত্তারক্ষী হিসাবে কাজ করতেন। আর তাঁকে খুন করা হল শুধু কয়লা চুরি করতে না দেওয়ার জন্য। এলাকারই বেশ কয়েকজন কয়লা চোর বাধা পেয়ে এই খুন করেছে। তারা ওই নিরাপত্তারক্ষীকে কয়লা কাটার গাঁইতি দিয়ে কুপিয়ে খুন করেছে বলে প্রাথমিক অনুমান।

ঠিক কী ঘটেছে ইসিএলে?‌ জানা গিয়েছে, সোমবার সকালে অন্য নিরাপত্তারক্ষীরা লক্ষ্য করেন মনোজের মৃতদেহ পড়ে রয়েছে। তখনই কর্তৃপক্ষকে খবর দেওয়া হয়। মনোজের দেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। রাতের অন্ধকারে চুরি করতে এসেছিল একদল দুষ্কৃতী। তখন মনোজ বাধা দেয়। চিৎকার করলে বিপদ হতে পারে বুঝতে পেরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করে দেওয়া হয়। তদন্তে নেমেছে রানিগঞ্জ থানার পুলিশ।

উল্লেখ্য, বাংলায় কয়লা পাচারের মতো কেলেঙ্কারির কিনারা উঠে পড়ে লেগেছেন একাধিক তদন্তকারী সংস্থা। সেখানে কয়লা চুরি রুখতেই খুন ভাবিয়ে তুলেছে পুলিশ প্রশাসনকে। এই নিয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিশ। কয়লা রুখতে খুন নাকি নেপথ্যে আরও কিছু কারণ আছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে।

বন্ধ করুন