বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Social media bullying- সোশ্যাল মিডিয়ায় অশ্লীল পোস্ট, সম্মানহানীর আশঙ্কায় আত্মঘাতী কিশোরী
আত্মঘাতী কিশোরী । (প্রতীকী ছবি)

Social media bullying- সোশ্যাল মিডিয়ায় অশ্লীল পোস্ট, সম্মানহানীর আশঙ্কায় আত্মঘাতী কিশোরী

  • পরিবারের লোকেরা তাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে প্রথমে বিধাননগর প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসার পর তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় বিধাননগর থানার পুলিশ। কিশোরীর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে।

সম্মানহানীর আশঙ্কায় আত্মঘাতী হল এক কিশোরী। সোশ্যাল মিডিয়ায় তার ছবি দিয়ে অশ্লীল কথাবার্তা লেখা হয়েছিল বলে অভিযোগ। সেই ঘটনার পরে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয় ওই কিশোরীর। ঘটনাটি শিলিগুড়ি মহাকুমা পরিষদের অন্তর্গত ফাঁসিদেওয়া ব্লকের ফর্সা লাইনের। এই ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা রুজু করেছে বিধাননগর থানার পুলিশ। মৃত কিশোরীর নাম অনিষা কিসকোট্টা। স্থানীয় একটি স্কুলের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিল অনিষা।

পরিবারের লোকেরা তাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে প্রথমে বিধাননগর প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসার পর তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় বিধাননগর থানার পুলিশ। কিশোরীর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। তার পরিবারের অভিযোগ, টিনা নামে অনিষার এক বান্ধবী তার ছবি পোস্ট করে সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু অশ্লীল কথাবার্তা লেখে সেটি অনিষার চোখে পড়ে যায়। শিক্ষক দিবস পালন করার পর বিকেলে বাড়ি ফেরে অনিষা। কিন্তু তারপর থেকে সে পরিবারের কোনও সদস্যের সঙ্গে কথা বলেনি। চুপচাপ নিজের ঘরে চলে যায়। তারপরে সন্ধ্যায় তার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়।

অনিষার দিদি চুমকি নাগেসিয়ার অভিযোগ, এই ঘটনায় টিনা ছাড়াও আরও এক যুবক জড়িত রয়েছে। তিনি জানান, বিষয়টি তার বোনের কাছ থেকে জানার পর তিনি চুমকিকে ফোন করে পোস্ট ডিলিট করে দিতে বলেন। তারপর অবশ্য পোস্টটি ডিলিট করা হয়। কিন্তু সেই পোস্টেকে ঘিরে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিল অনিষা। সেই কারণেই সে আত্মঘাতী হয়েছে বলে দাবি পরিবারের । ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। তবে বিধাননগর থানার পুলিশ পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

বন্ধ করুন