বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পোশাক পায়নি পড়ুয়ারা, 'কাটমানি' পেয়েছেন প্রধান শিক্ষক, অভিযোগকে ঘিরে শোরগোল
স্কুলে মিড ডে মিল পরিষেবাকে ঘিরেও নানা অভিযোগ (প্রতীকী ছবি)
স্কুলে মিড ডে মিল পরিষেবাকে ঘিরেও নানা অভিযোগ (প্রতীকী ছবি)

পোশাক পায়নি পড়ুয়ারা, 'কাটমানি' পেয়েছেন প্রধান শিক্ষক, অভিযোগকে ঘিরে শোরগোল

  • নানা অভিযোগ জলপাইগুড়ির রাজগঞ্জ ব্লকের বলদাপুকুর নেতাজি সুভাষ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উঠেছে। এনিয়ে শুক্রবার স্কুলের সামনে অভিভাবকরা বিক্ষোভও দেখিয়েছেন।

প্রাথমিক বিদ্য়ালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভয়াবহ দুর্নীতির অভিযোগ। মিড ডে মিলের দুর্নীতি থেকে স্কুলের পড়ুয়াদের পোশাকের জন্য বরাদ্দ টাকা থেকেও কাটমানি নিয়েছেন প্রধান শিক্ষক। এমনই নানা অভিযোগ জলপাইগুড়ির রাজগঞ্জ ব্লকের বলদাপুকুর নেতাজি সুভাষ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উঠেছে। এনিয়ে শুক্রবার স্কুলের সামনে অভিভাবকরা বিক্ষোভও দেখিয়েছেন। তাঁদের একাংশের অভিযোগ, স্কুলের প্রধান শিক্ষক সব দিক থেকে দুর্নীতিগ্রস্ত। স্কুলে প্রায় ৩০০ জন পড়ুয়া। মাত্র ১০০জনকে মিড-ডে মিল দেওয়া হয়। বাকিরা মিড-ডে মিল পেত না। সেই মিড- ডে মিলের টাকাতেও ভাগ বসান প্রধান শিক্ষক। অভিযোগ এমনটাই।

অভিযোগ  মিড-ডে মিলের রান্না যারা করেন সেই স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলাদের পারিশ্রমিকের টাকাও আত্মসাৎ করেছেন প্রধান শিক্ষক। পাশাপাশি পড়ুয়াদের পোশাক না দিয়ে পোশাক সরবরাহকারী সংস্থার থেকেও প্রধান শিক্ষক কাটমানি নিয়েছেন বলে অভিযোগ। কার্যত ভুরি ভুরি বঞ্চনার অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। গোটা ঘটনায় শোরগোল পড়েছে এলাকায়।

তবে এসব অভিযোগ স্বীকার করতে চাননি প্রধান শিক্ষক। সংবাদ মাধ্যমের কাছে তাঁর দাবি করোনা পরিস্থিতির জেরে এখনও পোশাক সরবরাহ করেনি সংস্থা। সেকারণে দেওয়া যায়নি। সামনের মাসে যখন মিড-ডে মিল দেওয়া হবে তখনই পোশাক দেওয়া হবে। অন্যদিকে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলাদের পারিশ্রমিকের টাকা কয়েক মাস পর পর আসে। সেকারণে প্রতি মাসে তা দেওয়া যায়নি। তবে প্রধান শিক্ষকের যুক্তি মানতে নারাজ অভিভাবকদের অনেকেই।

 

বন্ধ করুন