বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > শঙ্কুদেব পণ্ডার ‘হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ লিভ’ নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই চটলেন শুভেন্দু অধিকারী
বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী
বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী

শঙ্কুদেব পণ্ডার ‘হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ লিভ’ নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই চটলেন শুভেন্দু অধিকারী

  • সম্প্রতি বিজেপির হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ‘লেফট’ তালিকায় যুব নেতা শঙ্কুদেব পণ্ডার নাম জুড়েছে।

‘হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ লিভ’ রোগে মারাত্মক ভাবে জর্জরিত বিজেপি। সম্প্রতি এই ‘লেফট’ তালিকায় নাম জুড়েছে যুব নেতা শঙ্কুদেব পণ্ডার। যেই বিজেপি ভোটের আগে তৃণমূলের অন্তর্দ্বন্দ্ব দেখে মজা পাচ্ছিল, এখন তারাই অন্তর্কলহে জর্জরিত। নতুন রাজ্য ও জেলা কমিটির সদস্যদের নাম প্রকাশ হতেই বিক্ষোভ দেখা দিয়েছে দলের অন্দরে। আর সেই নিয়ে প্রশ্ন করা হলেই মেজাজ হারালেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। রবিবার শঙ্কুদেব পণ্ডার হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছাড়া নিয়ে প্রশ্ন করা হলেই সাংবাদিকদের শুভেন্দু বলেন, ‘কে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে ঢুকল, কে বের হল, সেটা দেখা এটা আপনাদের কাজ নয়।’

রবিবার পটাশপুরে আক্রান্ত নেতা তাপস মাজিকে দেখতে গিয়েছিলেন শুভেন্দু। সেখানেই শঙ্কুদেবকে নিয়ে প্রশ্নের মুখোমুখি হন তিনি। প্রাথমিক ভাবে প্রশ্নে মেজাজ হারালেও পরে তিনি বিষয়টি নিয়ে নিজের ব্যাখ্যা দেন শুভেন্দু। তিনি বলেন, ‘এখন যুব মোর্চার ক্ষেত্রে বয়সসীমা ধার্য করা হয়েছে। শঙ্কুর বয়স ৩৫ পেরিয়ে গিয়েছে। নতুন যেই কমিটি হচ্ছে, সেখানে স্বভাবতই শঙ্কুদেব থাকবেন না। দল হয়ত শঙ্কুকে অন্য কোথাও কাজে লাগাবে। এটা নিয়ে মিডিয়াকে এত ভাবতে হবে না। এটা বিজেপির কাজ, বিজেপি ভালো ভাবে জানে।’

এর আগে শনিবার গভীর রাতে দলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছাড়েন শঙ্কুদেব পণ্ডা। বিজেপির রাজ্য যুব মোর্চার সহ-সভাপতি পদে ছিলেন তিনি। প্রসঙ্গত বিজেপি নেতাদের দলীয় হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছেড়ে যাওয়ার হিড়িক শুরু হয়েছে গত মাস থেকে। দলের নয়া রাজ্য কমিটি ঘোষণা হওয়ার পর পার্টির হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছাড়েন মতুয়া সম্প্রদায়ের পাঁচ বিজেপি বিধায়ক৷ তারপর বাঁকুড়া জেলার চার বিজেপি বিধায়কও দলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছেড়ে বেরিয়ে যান৷ বারাসতের দুই বিজেপি নেতাও একই পথে হাঁটেন৷ গ্রুপ ছাড়েন বনগাঁর সাংসদ শান্তনু ঠাকুরও। এই অভস্থায় গতকালই শান্তনুর বাড়িতে সায়ন্তন বসু, জয়প্রকাশ মজুমদারদের মতো বিক্ষোবিধ নেতাদের বৈঠকও হয়।

বন্ধ করুন