বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > নন্দীগ্রামে তেরঙ্গা যাত্রায় পুলিশের বাধা, পালটা হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর
নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর পথ আগলে পুলিশ।

নন্দীগ্রামে তেরঙ্গা যাত্রায় পুলিশের বাধা, পালটা হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

  • তাঁর যুক্তি, এই মিছিল অরাজনৈতিক। মিছিলে যারা রয়েছেন তাঁরা প্রত্যেকে নন্দীগ্রামের ভোটার। এলাকায় কোথাও ১৪৪ ধারা জারি নেই। তার পরেও কেন মিছিল আটকাচ্ছে পুলিশ? অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, এই মিছিলের কোনও পুলিশি অনুমতি নেই।

নন্দীগ্রামে শুভেন্দুর তেরঙ্গা যাত্রায় পুলিশের বাধা। শুক্রবার এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় নন্দীগ্রামের তেখালি ব্রিজের কাছে। পুলিশকর্তাদের সঙ্গে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন শুভেন্দুবাবু। এমনকী তাঁদের নামে দিল্লিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে অভিযোগ জানানোর হুমকি দেন তিনি।

শুক্রবার বিকেলে তেখালি থেকে রেয়াপাড়া পর্যন্ত ১৮ কিলোমিটার রাস্তা জাতীয় পতাকা নিয়ে মোটরসাইকেল র্যালি করার কথা ছিল শুভেন্দুর। কিন্তু মিছিল শুরু হতেই তেখালি ব্রিজের কাছে মিছিল ঘিরে ফেলেন পূর্ব মেদিনীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শ্রদ্ধা পান্ডে। এর পরই পুলিশকর্তাদের সঙ্গে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন শুভেন্দু।

তাঁর যুক্তি, এই মিছিল অরাজনৈতিক। মিছিলে যারা রয়েছেন তাঁরা প্রত্যেকে নন্দীগ্রামের ভোটার। এলাকায় কোথাও ১৪৪ ধারা জারি নেই। তার পরেও কেন মিছিল আটকাচ্ছে পুলিশ? অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, এই মিছিলের কোনও পুলিশি অনুমতি নেই। পালটা শুভেন্দু বলেন, জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে মিছিল করতে আবার পুলিশের অনুমতি লাগে না কি? তিনি বলেন, দীর্ঘ পথ মিছিল করব। তাই মোটরসাইকেলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এর পরই পুলিশ আধিকারিকদের হুঁশিয়ারির সুরে শুভেন্দু বলেন, আপনাদের বিরুদ্ধে দিল্লিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে অভিযোগ জানাবো।

শুভেন্দুর হুঁশিয়ারিতে যদিও পিছু হঠেনি পুলিশ। শেষ পর্যন্ত কর্মসূচি বাতিল করতে হয় শুভেন্দুবাবুকে। তিনি বলেন, ইচ্ছা করলে আমরা সংঘাতের পথ নিতে পারতাম। তাহলে পুলিশ আবার নতুন করে কেস দেওয়ার সুযোগ পেয়ে যেত। বিষয়টি আমি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে জানাব। মমতা বন্দ্যোপাধ্যা ১৯৫৬ ভোটে হারের শোক ভুলতে পারছেন না। তাই বার বার পুলিশ পাটিয়ে আমাকে বাধা দিচ্ছেন।

 

বন্ধ করুন