বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'আন্টিরা চুড়িদার পরলে বাচ্চারা কী শিখবে!' সোনারপুরের স্কুলে জারি পোশাক ফতোয়া
'আন্টিরা চুড়িদার পরলে বাচ্চারা কী শিখবে!' সোনারপুরের স্কুলে জারি পোশাক ফতোয়া। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
'আন্টিরা চুড়িদার পরলে বাচ্চারা কী শিখবে!' সোনারপুরের স্কুলে জারি পোশাক ফতোয়া। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

'আন্টিরা চুড়িদার পরলে বাচ্চারা কী শিখবে!' সোনারপুরের স্কুলে জারি পোশাক ফতোয়া

  • স্কুলের এই নির্দেশকে কেন্দ্র করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

স্কুলে শিক্ষিকাদের আসতে হবে শাড়ি পরে। অন্য কোনও পোশাক পরা যাবে না। গত সপ্তাহ থেকে খুলেছে স্কুল। আর তারপরেই এমনই নির্দেশিকা জারি করেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা সোনারপুরের বলরাম মন্মথনাথ বিদ্যামন্দির স্কুল। স্কুলের এই নির্দেশকে কেন্দ্র করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

গত সপ্তাহের মঙ্গলবার স্কুল খোলার আগেই স্কুলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে শিক্ষিকাদের শাড়ি পরা নিয়ে নির্দেশ জারি করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, শালীনতা বজায় রেখে পোশাক পরতে হবে। তাতে অবশ্য শিক্ষিকারা আপত্তি না জানালেও বিতর্ক তৈরি হয়। সেই বিতর্কে সমাধানে সোমবার স্কুলের প্রধান শিক্ষক সমস্ত শিক্ষক শিক্ষিকাদের নিয়ে বৈঠকে বসেন। বৈঠকে শাড়ি পরা বিষয়টি বাদ দেওয়া হলেও শালীনতা বজায় রেখে পোশাক পরার জন্য শিক্ষিকাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কী কারণে স্কুলের এরকম নির্দেশ?

স্কুলের প্রধান শিক্ষক দাবি করেছেন, শিক্ষিকারা অনেকেই চুড়িদার, লেগিংস পরে স্কুলে আসেন। শিক্ষিকাদের এরকম পোশাক পরা নিয়ে অভিভাবকরা একাধিকবার স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন। অভিভাবকদের বক্তব্য, 'দিদিমণিরা সালোয়ার কামিজ বা লেগিংস পরে আসতে পারবেন না। ওদের দেখেই ছেলেপুলেরা শিখবে। আন্টি মানেই শাড়ি পরবে।' তাই শিক্ষিকারা যাতে শাড়ি পড়ে স্কুলে আসেন, সে বিষয়ে অভিভাবকরা লিখিত অভিযোগ জানিয়ে ছিলেন। তাঁদের সেই অভিযোগের ভিত্তিতে স্কুলে যাতে অশান্তির পরিবেশ তৈরি না হয় তার জন্য এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে দাবি করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

সোমবার স্কুলের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে শালীনতা বজায় রেখে শিক্ষিকারা পোশাক পরতে পারবেন। স্কুল কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তে অবশ্য আপত্তি জানাননি শিক্ষিকারা।

বন্ধ করুন