বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ফ্লাই অ্যাশের স্টোরেজ ভেঙে রানিগঞ্জে দুর্ঘটনা, স্তূপে ৩ কর্মী আটকে থাকার দাবি
রানীগঞ্জে ভেঙে পড়ল ফ্লাই অ্যাশের ডাম্পিং স্টোরেজ। ছবিটি প্রতীকী। (West Bengal Industrial Development Corporation)

ফ্লাই অ্যাশের স্টোরেজ ভেঙে রানিগঞ্জে দুর্ঘটনা, স্তূপে ৩ কর্মী আটকে থাকার দাবি

  • রানিগঞ্জের মঙ্গলপুর শিল্পতালুক এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে। ঘটনায় কারখানার ৩ জন কর্মী স্টোরেজের ছাইয়ের নিচে চাপা পড়েছেন বলে দাবি অন্যান্য কর্মীদের।

শনিবার সকালে বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটল ফ্লাই অ্যাশ তৈরির কারখানায়। ফ্লাই অ্যাশের স্টোরেজ ভেঙ্গে এই বিপত্তি। রানিগঞ্জের মঙ্গলপুর শিল্পতালুক এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে। ঘটনায় কারখানার তিনকর্মী স্টোরেজের ছাইয়ের নিচে চাপা পড়েছেন বলে দাবি অন্যান্য কর্মীদের। এই ঘটনার পরেই উদ্ধার কাজে নেমেছে পুলিশ এবং দমকল। ঘটনাকে কেন্দ্র করে কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক ভীতির সঞ্চার হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন ভোরে ফ্লাই অ্যাশ তৈরির কারখানায় কাজ করছিলেন কর্মীরা। সেই সময় আচমকাই ফ্লাই অ্যাশ তৈরির ডাম্পিং স্টোরেজ ভেঙে যায়। বেশ কয়েকজন কর্মী সেই সময় স্টোরেজের নিচে কাজ করছিলেন। ঘটনায় তড়িঘড়ি কয়েকজন কর্মী নিরাপদে সরে গেলেও চার কর্মী তখনও স্টোরেজের নিচে ছিলেন।

খবর পাওয়া মাত্রই পুলিশ ও দমকল ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। সেখানে পৌঁছে শিবনাথ রাম নামে এক কর্মীকে ছাইয়ের স্তূপ থেকে উদ্ধার করে পুলিশ ও দমকল। ওই কর্মী জানান, আরও তিনজন ফ্লাই অ্যাশের নিচে চাপা পড়ে রয়েছেন। সাধারণত স্পঞ্জ থেকে তৈরি করা হয় ফ্লাই অ্যাশ। আর ফ্লাই অ্যাশ দিয়ে তৈরি ইট ব্যবহার করা হয় ধস মেরামত করার জন্য।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কারখানার কর্মী তন্ময় ঘোষ রানিগঞ্জের বল্লবপুরের বাসিন্দা, বাঁকুড়ার পলাশডাঙার বাসিন্দা শিবশংকর ভট্টাচার্য এবং অন্ডালের হরিশপুরের বাসিন্দা দিলীপ গোপ। এই ঘটনার জন্য স্থানীয় বাসিন্দারা কারখানা কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছে। তাঁদের অভিযোগ, কর্তৃপক্ষের গাফিলতির জন্য এই ঘটনা ঘটেছে। যদিও শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কর্মীদের এখনও উদ্ধার করার কাজ চালাচ্ছে পুলিশ ও দমকল।

বন্ধ করুন