বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > রক্তদান শিবিরকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ, আগ্নেয়াস্ত্র-সহ গ্রেফতার ১
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

রক্তদান শিবিরকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ, আগ্নেয়াস্ত্র-সহ গ্রেফতার ১

  • পুলিশ এসে আগ্নেয়াস্ত্র-সহ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। তার জেরে আরও উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে হাওড়া থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

স্বাধীনতা দিবসের পরদিন রক্তদান শিবিরকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলে উত্তপ্ত হয়ে উঠল হাওড়ার বেলিলিয়াস রোড। রবিবার রক্তদান শিবির চলাকালীনই ২ পক্ষের সংঘর্ষ বাঁধে। এক তৃণমূলকর্মীর কাছ থেকে উদ্ধার হয় একটি আগ্নেয়াস্ত্র। এর পর হাওড়া সিটি পুলিশের কর্তারা এসে ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় মোতায়েন হয়েছে RAF.

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রবিবার হাওড়া পুরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে বেলিলিয়াস রোডের ধারে রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছিল তৃণমূলের একটি গোষ্ঠী। রক্তদান শিবির শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যে সেখানে দলবল নিয়ে হাজির হন স্থানীয় তৃণমূল নেতা সচিন জয়সওয়াল। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন বহিরাগত বলেও অভিযোগ। 

সচিন জয়সওয়াল সেখানে পৌঁছতেই দুপক্ষের মধ্যে বচসা শুরু হয়ে যায়। কিছুক্ষণের মধ্যে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। এরই মধ্যে এক বহিরাগতের কাছে উদ্ধার হয় একটি আগ্নেয়াস্ত্র। রক্তদান শিবিরের আয়োজকরা তাকে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেন। 

পুলিশ এসে আগ্নেয়াস্ত্র-সহ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। তার জেরে আরও উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে হাওড়া থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। পিছন পিছন সেখানে পৌঁছয় দুপক্ষই। হাওড়া থানার সামনে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সিটি পুলিশের বিশাল বাহিনী ও RAF নামাতে হয়।

অশান্তির জেরে বেশ কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ হয়ে যায় রক্তদান শিবির। পরে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন হলে ফের শিবির শুরু হয়।

ঘটনায় গোষ্ঠীদ্বন্দের তত্ত্ব মানতে চাননি হাওড়া শহর তৃণমূলের সভাপতি অরূপ রায়। তিনি বলেন, ‘এই ঘটনায় তৃণমূলের যোগ নেই। ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। পুলিশকে নিরপেক্ষ তদন্ত করতে বলেছি।’

 

বন্ধ করুন