বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > কোচবিহারে দলেরই নেতার বাড়িতে বোমাবাজি, চলল গুলি, অভিযুক্ত তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি

কোচবিহারে দলেরই নেতার বাড়িতে বোমাবাজি, চলল গুলি, অভিযুক্ত তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি

কোচবিহারে দলেরই নেতার বাড়িতে বোমাবাজি, চলল গুলি, অভিযুক্ত তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)

এই অভিযোগ উঠেছে অঞ্চল সভাপতির বিরুদ্ধে।

গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে উত্তপ্ত হয়ে উঠল কোচবিহারের ভেটাগুড়ি এলাকা। এক তৃণমূল নেতার বাড়িতে বোমা বিস্ফোরণ, গুলি চালানো এবং আগুন লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল। এই অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতির বিরুদ্ধে।

যদিও অঞ্চল সভাপতি এই অভিযোগ অস্বীকার করে এটিকে ভাইয়ে ভাইয়ে বিবাদ বলে দাবি করেছেন। দুই ভাইয়ের জমি জায়গা সংক্রান্ত বিবাদের জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি দাবি করেছেন। ঘটনার সঙ্গে মিথ্যেভাবে রাজনৈতিক রং লাগানো হচ্ছে বলে তিনি পালটা অভিযোগ জানিয়েছেন। তবে এলাকায় বোমা বিস্ফোরণ এবং গুলি চালানোর ঘটনায় স্থানীয় মানুষজন ব্যাপকভাবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়।

এলাকার তৃণমূল কর্মী দীপকচন্দ্র বর্মণ অভিযোগ করেছেন, রাত আড়াইটে নাগাদ ২০ থেকে ২২ জন দুষ্কৃতী তাঁর বাড়িতে গিয়ে বোমা ছুড়েছে। পরপর তিনটি বোমা পড়ে। কিন্তু তার মধ্যে শুধুমাত্র দুটি বোমা ফাটে। বেশ কয়েক রাউন্ড গুলিও চালানো হয়। পাশাপাশি তাঁর বাড়িতে পাকা ধানের গোলায় দুষ্কৃতীরা আগুন লাগিয়ে দেয় বলে অভিযোগ। এলাকায় দীপকচন্দ্র বর্মণকে ব্লক সভাপতি সঞ্জয় বর্মণের ঘনিষ্ঠ হিসেবে ধরা হয়। তার আরও অভিযোগ, সুনীলচন্দ্র রায়ের নেতৃত্বে পঞ্চায়েতে জঙ্গলরাজ চলছে। বিরোধিতা করার জন্যই দুষ্কৃতীরা তাঁর বাড়িতে হামলা করেছিল বলে দাবি দীপকের।

এই সুনীলচন্দ্র রায় স্থানীয় বিধায়কের অনুগামী হিসেবেই পরিচিত। দীপক দাবি করেছেন, যাঁরা হামলা চালিয়েছিলেন, তাঁরা সকলেই এলাকারই বাসিন্দা। সকলেই তৃণমূল করেন। এদিকে, ঘটনার পর খবর পাওয়ার পরেই এলাকায় বিশাল পুলিশবাহিনী পৌঁছায়। কিন্তু, পুলিশ এসে পৌঁছানোর আগেই ঘটনাস্থল থেকে দুষ্কৃতীরা সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

বন্ধ করুন