বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > একশো দিনের কাজে ৩.২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ, অভিযোগ তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে
একশো দিনের কাজে ৩.২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ, অভিযোগ তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যার বিরুদ্ধে (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
একশো দিনের কাজে ৩.২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ, অভিযোগ তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যার বিরুদ্ধে (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

একশো দিনের কাজে ৩.২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ, অভিযোগ তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে

ব্লক প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, আগে অভিযোগ পেলেও ওনার বিরুদ্ধে উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে কিছু করা যায়নি। কিন্তু এবার তদন্ত করব ও উপযুক্ত ব্যবস্থা নেব।

‌১০০ দিনের কাজে দুর্নীতিতে নাম জড়াল তৃণমূলের এক পঞ্চায়েত সদস্যের। নিজের নামে ভুয়ো মাস্টাররোল বের করে লক্ষাধিক টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে ইটাহারের সুরুন গ্রাম পঞ্চায়েতে।

সম্প্রতি গ্রামবাসীরা অভিযোগ করেন, এলাকায় কবরস্থান সংস্কারের জন্য নিজেদের উদ্যোগে টাকা দিয়ে তাঁরা কাজ করছিলেন। কিন্তু পঞ্চায়েত সদস্যা মাজুদা খাতুন ভুয়ো মাস্টাররোল তৈরি করেন। এরপর সেই মাস্টাররোল দেখিয়ে প্রায় ৩ লাখ ২৪ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন। গ্রামবাসীদের বক্তব্য, 'এর আগে একাধিকবার বিভিন্ন দুর্নীতির কাজে জড়িয়ে পড়েছিলেন মাজুদা। তবে এবারে একেবারে হাতেনাতে ধরা পড়েছেন। আগে একাধিকবার অভিযোগ করেও কোনও লাভ হয়নি। কিন্তু এবারে জেলাশাসক, মহকুমাশাসক ও ব্লক উন্নয়ন আধিকারিককে লিখিতভাবে জানিয়েছি। প্রশাসনকে এবার ওর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেই হবে।'

ব্লক প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, আগে অভিযোগ পেলেও তাঁর বিরুদ্ধে উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে কিছু করা যায়নি। কিন্তু এবার তদন্ত করা হবেব ও উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হব। এই প্রসঙ্গে পঞ্চায়েতের তরফে জানানো হয়েছে, তাদের কাছে সরাসরি অভিযোগ আসেনি। তবে বিডিও–এর মারফত জানতে পারা গিয়েছে। যদি এভাবে টাকা আত্মস্মাৎ করে থাকে, তাহলে অবশ্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি অভিযুক্ত পঞ্চায়েত সদস্যা। এই বিষয়ে জেলা বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে, সরকারি টাকা এভাবে আত্মস্মাৎ কিছুতেই মেনে নেওয়া যাবে না। দোষীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া দরকার।

বন্ধ করুন