বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মন্ত্রীর সামনে সভায় নিজেকে ‘মস্তান’ ও ‘ভোট ছিনতাইকারী’ বলে ঘোষণা তৃণমূল নেতার
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

মন্ত্রীর সামনে সভায় নিজেকে ‘মস্তান’ ও ‘ভোট ছিনতাইকারী’ বলে ঘোষণা তৃণমূল নেতার

  • তিনি বলেন, আমরা যদি দাগি মালদের ভোটে জেতাতে পারি, তাহলে সদরের তাবড় তাবড় নেতা, ভাল মানুষ থাকতেও কেনও ভোটে জিততে পারি না?

বিধানসভা নির্বাচনের আগে দলীয় নেতার মন্তব্যে ফের অস্বস্তিতে তৃণমূল। এবার কাঠগড়ায় জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূলের SC-ST সেলের সভাপতি কৃষ্ণ দাস। সোমবার জলপাইগুড়ি আর্ট গ্যালারিতে এক কর্মিসভায় বিস্ফোরক মন্তব্য করেন তিনি। যা শুনে মুখ লুকিয়ে সভা ছাড়তে হয়েছে রাজ্যের মন্ত্রী গৌতম দেবকে। 

সোমবার জলপাইগুড়ি আর্ট গ্যালারিতে ছিল বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতি বৈঠক। হাজির ছিলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী গৌতম দেব। সেখানেই বিস্ফোরক মন্তব্য করেন বারাপেটিয়া এলাকার এই তৃণমূল নেতা। 

তিনি বলেন, আমরা যদি দাগি মালদের ভোটে জেতাতে পারি, তাহলে সদরের তাবড় তাবড় নেতা, ভাল মানুষ থাকতেও কেনও ভোটে জিততে পারি না? সঙ্গে তাঁর দাবি, বিধানসভা নির্বাচনে জলপাইগুড়ি শহরে SC – ST সেলের কর্মীদের ঢুকিয়ে আসনটি যে কোনও উপায়ে জিতবেন তিনি।

এখানেই শেষ নয়, মন্ত্রীর সামনেই নিজেকে মস্তান ও ভোট ছিনতাইকারী বলে দাবি করেন কৃষ্ণ দাস। সভা শেষে এই নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি গৌতম দেব। নেতার এহেন মন্তব্যে গুঞ্জন শুরু হয়েছে তৃণমূলেরই অন্দরে। সঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে, কাকে দাগি মাল বললেন কৃষ্ণ দাস?

বলে রাখি, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে জলপাইগুড়ি জেলার বিস্তীর্ণ এলাকায় ভোট লুঠের অভিযোগ ওঠে কৃষ্ণ দাসের বিরুদ্ধে। ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে যদিও সুবিধা করতে পারেনি। বিধানসভাওয়াড়ি ফলের নিরিখে জলপাইগুড়ি সদর আসন যায় বিজেপির দখলে। এই আসনে বর্তমান বিধায়ক কংগ্রেসের সুখবিলাস বর্মা। 

 

বন্ধ করুন