বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পার্টি অফিসে বসে হেসে লুটোপুটি খাচ্ছেন অনুব্রত, সাজিদের ভিডিও এখন ভাইরাল
মিমিক্রি’ শিল্পী সাজিদ খান অনুব্রতকে অনুকরণ করে দেখাচ্ছিলেন অনুব্রতকেই।
মিমিক্রি’ শিল্পী সাজিদ খান অনুব্রতকে অনুকরণ করে দেখাচ্ছিলেন অনুব্রতকেই।

পার্টি অফিসে বসে হেসে লুটোপুটি খাচ্ছেন অনুব্রত, সাজিদের ভিডিও এখন ভাইরাল

  • এমনকী পাশে বসে তাঁরই অঙ্গভঙ্গি অনুকরণ করে দেখালেন সাজিদ। যার ফলে হাসি চেপে রাখতে পারলেন না খোদ অনুব্রত।

অনেকদিন পর বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতিকে দম–ফাটা হাসি হাসতে দেখা গেল। অনেকেই প্রথমে বিষয়টি বুঝতে পারেননি। কিন্তু যখন পুরো বিষয়টি বোঝা গেল তখন হাসলেন বঙ্গবাসীও। হুবহু অনুব্রত মণ্ডলের মতো অঙ্গভঙ্গি। আর তাতেই হেসে লুটোপুটি খাচ্ছেন দিদির আদরের কেষ্ট। কারণ তখন ‘মিমিক্রি’ শিল্পী সাজিদ খান অনুব্রতকে অনুকরণ করে দেখাচ্ছিলেন অনুব্রতকেই। এমনকী পাশে বসে তাঁরই অঙ্গভঙ্গি অনুকরণ করে দেখালেন সাজিদ। যার ফলে হাসি চেপে রাখতে পারলেন না খোদ অনুব্রত।

অনুব্রত মণ্ডলের মিমিক্রি করে বেশ খ্যাতি অর্জন করেছেন সাজিদ। আর এবার তা অনুব্রত মণ্ডলের পাশে বসে করে দেখালেন। বোলপুরের কাশীপুর এলাকার বাসিন্দা সাজিদ খান। অনেকদিন ধরেই তিনি অনুব্রত মণ্ডলকে অনুকরণ করে ভিডিও তৈরি করছেন। আর তা আপলোড হতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়ে। রবিবার বীরভূম জেলার বোলপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় কার্যালয়ে এসেছিলেন অনুব্রত। সেখানেই উপস্থিত হয়েছিলেন সাজিদও।

তারপরই সেখা মিমিক্রি করে দেখান সাজিদ খান। সাজিদের আয়নায় নিজেকে দেখে হেসে লুটোপুটি খেলেন অনুব্রত। আর এই দেখে হাসি চেপে রাখতে পারেননি শাসকদলের বোলপুরের কর্মকর্তারাও। ২০২১ সালে প্রথম টিকটকে ভাইরাল হয় অনুব্রত মণ্ডলকে নিয়ে তাঁর করা ভিডিও। তারপর একের পর এক অনুব্রত মণ্ডলের নানান বক্তব্যকে অনুকরণ করে ভিডিও বানান সাজিদ। এমনকি শারীরিক অঙ্গভঙ্গিও করে দেখান সেখানে। যা এবার প্রত্যক্ষ করলেন স্বয়ং অনুব্রত।

মিমিক্রি শিল্পী সাজিদ খান কী বললেন?‌ এদিন সাজিদ বলেন, ‘‌তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসে অনুব্রত মণ্ডলের সঙ্গে ব্যক্তিগত কাজে দেখা করতে এসেছিলাম। সেখানেই অনুব্রতবাবু বলেন, তিনি আমার ভিডিও দেখেছেন। এবার সামনাসামনি দেখতে চেয়ে অনুরোধ করেন। তাই তাঁর পাশে বসেই একটি ভিডিও করলাম। ইতিমধ্যেই তা ভাইরাল হয়েছে। অনুব্রতবাবুর পাশে বসে কাজ করতে পেরে খুব খুশি আমি। তাঁকে হাসাতে পেরেও ভাল লাগছে।’‌

বন্ধ করুন