বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > কাজ করতে দেন না বিধায়ক, পদত্যাগ করে বিস্ফোরক তৃণমূলের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ
পদত্যাগী পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ কাজল সাহা। নিজস্ব চিত্র
পদত্যাগী পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ কাজল সাহা। নিজস্ব চিত্র

কাজ করতে দেন না বিধায়ক, পদত্যাগ করে বিস্ফোরক তৃণমূলের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ

  • সোমবার ইস্তফা দিয়ে কাজলবাবু বলেন, ‘পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ থেকে যদি এলাকার উন্নয়ন না করতে পারি। নিজের দফতরের কাজ নিজে না করতে পারি। তাহলে এই দফতরে থেকে লাভ কী আছে? 

দলীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে কাজ না করতে দেওয়ার অভিযোগ তুলে পূর্ত কর্মাধ্যক্ষের পদ ছাড়লেন তৃণমূল নেতা। সোমবার বিডিওর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন বীরভূমের ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ কাজল সাহা। তাঁর অভিযোগ, স্থানীয় বিধায়ক তথা ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লক তৃণমূল সভাপতি অভিজিৎ রায়ের হাতেই রয়েছে পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত দফতরের নিয়ন্ত্রণ। তাঁকে এলাকায় কোনও কাজ করতে দেওয়া হয় না। 

সোমবার ইস্তফা দিয়ে কাজলবাবু বলেন, ‘পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ থেকে যদি এলাকার উন্নয়ন না করতে পারি। নিজের দফতরের কাজ নিজে না করতে পারি। তাহলে এই দফতরে থেকে লাভ কী আছে? যিনি দফতর দেখাশুনো করেন তাঁর ভরসাতেই সভাপতি ম্যাডামকে আমার ইস্তফা জমা দিয়েছি’।

কাজলবাবুর রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা অবশ্য বহুদিনের। কংগ্রেস থেকে ১৯৯৮ সালে তৃণমূলে যোগ দেন তিনি। পঞ্চায়েত সমিতির ভোটে জেতেন সেই বছরই। ২০০৮ সালে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি হন। ২০১৩ সাল থেকে ছিলেন পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ। 

কাজলবাবুর দাবি, বিধায়কের বাধায় দীর্ঘদিন এলাকায় কোনও কাজ করতে পারেননি তিনি। তাঁর দফতরের ওপর বকলমে নিয়ন্ত্রণ কায়েম করে রেখেছিলেন অভিজিৎ রায়। তবে অন্য কোনও দলে যোগদানের ব্যাপারে মুখ খোলেননি তিনি। এই নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বও। 

 

বন্ধ করুন