বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ‘‌এখন অনেকে শাসকদলের মধু পান করতে চাইছেন’‌, বিস্ফোরক মন্তব্য তৃণমূল বিধায়কের
পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার হলেন আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। (ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)

‘‌এখন অনেকে শাসকদলের মধু পান করতে চাইছেন’‌, বিস্ফোরক মন্তব্য তৃণমূল বিধায়কের

  • একুশের নির্বাচনের আগে বহু নেতা তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে গিয়েছিলেন। আর ফলাফলের পর একে একে ফিরতে শুরু করেছেন। কেউ জিতে, কেউ পরাজিত হয়ে। আর তাঁদের দলে ফিরিয়ে নেওয়া হচ্ছে বলেই এমন মন্তব্য করেছেন ডেপুটি স্পিকার বলে মনে করা হচ্ছে। কয়েকদিন আগে দলীয় কর্মীদের সৎ থাকার পরামর্শ দেন।

দু’‌দিন আগে তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় দলে ফিরিয়ে নেওয়া বিজেপিতে যাওয়া নেতাদের নিয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছিলেন। এবার যেন সেই একই সুর শোনা গেল রামপুরহাটের বিধায়ক আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায়। শাসকদলের ‘মধু পান’ করতে এখন তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিচ্ছেন অনেকে বলে কর্মীসভায় বিস্ফোরক মন্তব্য করেন তিনি। রবিবার মাসড়া এলাকার তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী–সম্মেলনে এমনই কথা বলেছেন তিনি।

ঠিক কী বলেছেন বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার?‌ শাসকদলের বিধায়ক আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌এখন রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের ঢেউ এসেছে। একটা সময় ছিল যখন দল ক্ষমতায় আসেনি। তখন অনেকেই তৃণমূল কংগ্রেসের পতাকা হাতে নিতে ভয় পেত। আর এখন রাজ্যে ভরা সংসারে অনেকে শাসকদলের মধু পান করতে পতাকা নিতে চাইছে।’‌

কেমন লড়াই করতে হয়েছিল?‌ এই বিষয়ে অতীত সংগ্রামের স্মৃতি টেনে আশিসবাবু বলেন, ‘‌আপনারা দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই–সংগ্রাম করেছেন। আপনারাই ভোট দিয়ে বিধায়ক, সাংসদকে এখান থেকে নির্বাচিত করেছেন। যেদিন আপনারা তৃণমূল কংগ্রেসের পতাকা নিয়ে লড়াই শুরু করেছিলেন, সেদিন অনেকেই এই পতাকাটা ধরতে পারেননি। কত বদনাম–গালিগালাজ সহ্য করতে হয়েছে। তখনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হননি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন ক্ষমতায় আসলেন, তখন অন্য দল থেকে সেই নেতারা মমতাদির পায়ে ধরে দলে ঢুকল।’‌

উল্লেখ্য, একুশের নির্বাচনের আগে বহু নেতা তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে গিয়েছিলেন। আর ফলাফলের পর একে একে ফিরতে শুরু করেছেন। কেউ জিতে, কেউ পরাজিত হয়ে। আর তাঁদের দলে ফিরিয়ে নেওয়া হচ্ছে বলেই এমন মন্তব্য করেছেন ডেপুটি স্পিকার বলে মনে করা হচ্ছে। কয়েকদিন আগে দলীয় কর্মীদের সৎ থাকার পরামর্শ দেন। এই নিয়ে তিনি বলেছিলেন, ‘‌বুকে হাত দিয়ে বলতে হবে আপনারা সৎ কিনা।’‌

বন্ধ করুন