বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ওই বাড়িতে আরও কয়েকজন উপসর্গহীন রোগী আছেন-অধিকারীদের প্রসঙ্গে অভিষেক
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (PTI)
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (PTI)

ওই বাড়িতে আরও কয়েকজন উপসর্গহীন রোগী আছেন-অধিকারীদের প্রসঙ্গে অভিষেক

  • এবার গঙ্গারামপুর থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আমরা বুঝেছি, ওই বাড়িতে আরও কয়েকজন উপসর্গহীন রোগী আছেন। আমাদের ব্যবস্থা নিতে সুবিধা হবে।’

অধিকারী পরিবারের বাকি সদস্যরাও কি বিজেপি’‌র পথে? দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুরের সভা থেকে এমন ইঙ্গিত দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। আগেই তিনি শুভেন্দু অধিকারীকে ‘তৃণমূলে উপসর্গহীন বিজেপি’ বলে উল্লেখ করেছিলেন। এবার গঙ্গারামপুর থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আমরা বুঝেছি, ওই বাড়িতে আরও কয়েকজন উপসর্গহীন রোগী আছেন। আমাদের ব্যবস্থা নিতে সুবিধা হবে।’ আর তারপর থেকেই এই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

শুভেন্দুর হাত ধরে ইতিমধ্যেই গেরুয়া পতাকা হাতে নিয়েছেন সৌম্যেন্দু অধিকারী। এই বিষয়ে অভিষেক বলেন, ‘‌আমি বলেছিলাম, নিজের বাড়িতেই পদ্ম ফোটাতে পারছে না, বাংলায় কী করবে? সঙ্গে সঙ্গে একটা ভাইকে এনে জয়েন করিয়েছে। তার মানে তোমার বাড়িতে আরও উপসর্গহীন রোগী রয়েছে!’‌

অভিষেকের লক্ষ্য শুভেন্দুর ভাই তথা সাংসদ দিব্যেন্দু। তবে এই ইঙ্গিত আরও একধাপ উপরে শুভেন্দুর বাবা তথা আর এক তৃণমূল সাংসদ শিশির অধিকারীর দিকেও কিনা, তা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে। দলের মধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে, অধিকারী পরিবারের সকলেই গেরুয়া শিবিরের দিকে পা বাড়িয়ে রয়েছেন?

শুভেন্দুর ভাই দিব্যেন্দু তমলুকের সাংসদ। বাবা শিশির অধিকারী কাঁথির সাংসদ ও পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূল জেলা সভাপতি। শুভেন্দু বিজেপিতে যাওয়ার পর দাদার পাশে দাঁড়াননি দিব্যেন্দু। বরং কটাক্ষ বলেছিলেন, ‘‌তৃণমূলের সাংসদ আছি, থাকব। আমি তো আর পাগলা ষাঁড় হয়ে যাইনি।’‌ তবে সৌম্যেন্দুকে কাঁথি পুরসভার প্রশাসক পদ থেকে সরানোর পরই বেসুরো বেজেছেন দিব্যেন্দু–শিশির। এভাবে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত অসাংবিধানিক বলে মন্তব্য করেছেন দু’‌জনেই।

দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুরে অধিকাংশ ভোটার তফসিলি জাতি ও জনজাতি সম্প্রদায়ভুক্ত। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে এই এলাকায় বিজেপি’‌র থেকে প্রায় ১৩ শতাংশ ভোট কম পেয়েছিল তৃণমূল। সেখানে কিন্তু অভিষেকের জনসভায় ভিড় উপচে পড়ে। মাঠ ছাপিয়ে সেই ভিড় পাশের স্টেডিয়াম ও সামনের রাস্তাতেও চলে যায়। এই ভিড়ে ঠাসা সভা থেকে অভিষেক নাম না করে শুভেন্দু তথা অধিকারী পরিবারের দিকে আঙুল তুলে বলেন, ‘সব বেইমান, ডাকাত বিজেপিতে ঢুকে গিয়েছে। আপনি দলের খেয়ে দলের সঙ্গে গদ্দারি করেছেন।’‌

 

বন্ধ করুন