বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > করোনা আতঙ্গে ধারেকাছে ঘেঁষলেন না কেউ, বিজেপি নেতার দেহ সৎকার করলেন তৃণমূলের
মৃত বিজেপি নেতার দেহ সৎকার করলেন তৃণমূল নেতারা: ছবিটি প্রতীকী (‌সৌজন্য রয়টার্স)‌ (REUTERS)
মৃত বিজেপি নেতার দেহ সৎকার করলেন তৃণমূল নেতারা: ছবিটি প্রতীকী (‌সৌজন্য রয়টার্স)‌ (REUTERS)

করোনা আতঙ্গে ধারেকাছে ঘেঁষলেন না কেউ, বিজেপি নেতার দেহ সৎকার করলেন তৃণমূলের

হানাহানি, খুনোখুনির মধ্যেও সৌজন্যতার জির গড়ল পূর্ব বর্ধমান

বাড়িতেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছিল এক বিজেপি নেতার। করোনায় মৃত্যু হয়েছে ভেবে তাঁর দেহ সৎকারে কেউ এগিয়ে আসেননি। এই অবস্থায় সারারাত স্বামীর দেহ আগলে বসেছিলেন তাঁর স্ত্রী। তা জানতে পেরেই এবার এগিয়ে এলেন এলাকারই তৃণমূল নেতারা। ওই বিজেপি নেতার দেহ সৎকার করলেন তাঁরা। তৃণমূল নেতাদের সহযোগীতায় প্রায় কুড়ি ঘণ্টা পর ওই বিজেপি নেতার দেহ সৎকার করা হয়। ভোট-পরবর্তী হিংসার আবহের মধ্যে চরম বিপরীত ও সৌজন্যতার নজির গড়তে দেখা গেল এই বাংলার বুকেই।

ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমান জেলার কাটোয়া মহকুমার কেতুগ্রাম থানার চাকতা গ্রামে। জানা গিয়েছে, শুক্রবার দুপুরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বাড়িতেই মারা যান চাকতা গ্রামের বাসিন্দা তথা বিজেপির নেতা অনুপ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি ওই গ্রামের বিজেপির বুথ সভাপতি ছিলেন। তাঁর স্ত্রী রিনা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, অনুপের করোনায় মৃত্যু হয়েছে ভেবে প্রতিবেশী, আত্মীয়রা কেউ তাঁদের বাড়িতে আসেননি। এমনকী, গ্রামের বিজেপির কর্মী সমর্থকেরাও কেউ তাঁদের বাড়িতে আসেননি। রাতভর মৃতদেহ আগলে বসে থাকেন রিনা। শেষে স্থানীয় কয়েকজন তৃণমূল কর্মীই ওই বিজেপি নেতার মরদেহ সৎকারে এগিয়ে আসেন। তাঁদের সহযোগিতায় প্রায় কুড়ি ঘণ্টা পর ওই বিজেপি নেতার দেহ কাটোয়ার উর্ধারণপুর শ্মশানে সৎকার করা হয়।

তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার সকালে বিষয়টি জানতে পারেন আনখোনা অঞ্চলের তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা বুদুন শেখ। তারপর তৃণমূলের কর্মীদের নির্দেশ দেন। ওই বিজেপি নেতার বাড়িতে যান কয়েকজন তৃণমূলকর্মী। তারপর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। মৃতের জামাই দেবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌এই সহযোগিতা না করলে দেহ সৎকার করাই সম্ভব হত না।’‌

বন্ধ করুন