বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > তৃণমূলের ২ নেত্রীর চুলোচুলিতে উত্তেজনা সোনারপুরে
সোনারপুর দক্ষিণের বিধায়ক লাভলি মৈত্র।
সোনারপুর দক্ষিণের বিধায়ক লাভলি মৈত্র।

তৃণমূলের ২ নেত্রীর চুলোচুলিতে উত্তেজনা সোনারপুরে

  • অরুন্ধতী দেবী এক পুলিশ আধিকারিকের কাছে গিয়ে হস্তক্ষেপ করতে বললে তিনি বলেন, আপনাদের নিজেদের ব্যাপার নিজেরা মিটিয়ে নিন।

তৃণমূলের ২ মহিলানেত্রীর চুলোচুলিতে উত্তেজনা ছড়াল রাজপুর – সোনারপুর টাউন তৃণমূল পার্টি অফিসে। সোমবার রাতে স্থানীয় বিধায়ক অরুন্ধতী মৈত্র ও শহর তৃণমূল সভাপতি কুহেলি ঘোষের লড়াই একেবারে রাস্তায় নেমে আসা। চলে অকথ্য গালিগালাজ। এমনকী একে অপরের ওপর হামলে পড়েন ২ নেত্রীর সমর্থকরা। যাতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

তৃণমূলের সাম্প্রতিক রদবদলে কুহেলিদেবীকে শহর তৃণমূল সভানেত্রী ঘোষণা করা হয়েছে। অথচ তাঁর নেতৃত্ব মানতে নারাজ অরুন্ধতীদেবী। সোমবার সন্ধ্যায় নিজের অনুগামীদের নিয়ে রাজপুর – সোনারপুর টাউন তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়ে বৈঠক করছিলেন তিনি। তখন সদলবদলে সেখানে পৌঁছন কুহেলীদেবী। তাঁর অভিযোগ, কার্যালয়ে ঢুকতে তাঁকে বাধা দেওয়া হয়। এর পরই শুরু হয় তুমুল উত্তেজনা। কুহেলিদেবীর অনুগামীরা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলতে থাকেন, ‘খালি কর খালি কর।’ পালটা বিধায়কের অনুগামীরা অরুন্ধতী মৈত্র জিন্দাবাদ স্লোগান দিতে থাকেন। বরাবরের মতো এখানেও দর্শকের ভূমিকায় পুলিশ।

অরুন্ধতী দেবী এক পুলিশ আধিকারিকের কাছে গিয়ে হস্তক্ষেপ করতে বললে তিনি বলেন, আপনাদের নিজেদের ব্যাপার নিজেরা মিটিয়ে নিন। এর পর সংবাদমাধ্যমের সামনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তিনি। বলেন, আমি সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলাম। আমাকে ঢুকতে দিচ্ছে না। আমি কি রাস্তায় কর্মসূচি পালন করবো? 

পালটা অরুন্ধতী মৈত্র বলেন, ‘পদ পাওয়ার জন্য দলকে বদনাম করছেন উনি। ওনাকে শহর সভাপতি মানি না।’ এরই মধ্যে ২ পক্ষের একপ্রস্থ হাতাহাতিও হয়ে যায়। তাতে আহত হন বেশ কয়েকজন।

বলে রাখি, লাভলি মৈত্র নামে পরিচিত সোনারপুর দক্ষিণের বিধায়ক অরুন্ধতী মৈত্র।

 

বন্ধ করুন