বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বিজেপি কর্মীদের স্যানিটাইজ করে তৃণমূলে নেওয়া হল, কেষ্টর জেলায় নজির
তৃণমূল ও বিজেপি–র পতাকা। ফাইল ছবি

বিজেপি কর্মীদের স্যানিটাইজ করে তৃণমূলে নেওয়া হল, কেষ্টর জেলায় নজির

  • বিজেপি কর্মীদের ‘ভাইরাস মুক্ত’ করতে স্যানিটাইজার ছিটিয়ে ‘শুদ্ধ’ করছেন তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা।

কয়েকদিন আগে রাজ্য–রাজনীতিতে একটি ছবি ধরা পড়েছিল। তা হল—বিজেপি কর্মীরা তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার জন্য ধর্ণায় বসেছেন। তারপর তাঁদের গঙ্গা জল ছিটিয়ে দলে নেওয়া হয়েছিল। এবার আর একটি ছবি দেখা গেল। সেটা হল— লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন বিজেপি কর্মীরা। তাঁরা যোগ দেবেন তৃণমূল কংগ্রেসে। আর বিজেপি কর্মীদের ‘ভাইরাস মুক্ত’ করতে স্যানিটাইজার ছিটিয়ে ‘শুদ্ধ’ করছেন তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা। বৃহস্পতিবার এই ঘটনাটি ঘটেছে অনুব্রত মণ্ডলের গড় বীরভূমের ইলামবাজারে। এই ঘটনা নিয়ে জোর চর্চা শুরু হয়েছে। কারণ এই ধারা অব্যাহত থাকলে বিজেপির সংগঠন তলানিতে গিয়ে পৌঁছবে। যা কপালে ভাঁজ ফেলেছে গেরুয়া শিবিরের।

কয়েকদিন আগে এই জেলারই লাভপুরে বিজেপি কর্মীদের দেখা গিয়েছিল টোটো করে এলাকায় প্রচার করছেন— বিজেপি করে অন্যায় করেছেন। তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরতে চান। তাঁদের ফেরানোও হয়েছিল। কোথাও আবার বিজেপি কর্মীকে মাথা মুড়িয়ে ‘প্রায়শ্চিত্ত’ করিয়ে দলে নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। এবার ব্যবহার হল স্যানিটাইজার।

এই বিষয়ে ইলামবাজার তৃণমূল কংগ্রেস নেতা দুলাল রায় বলেন, ‘যাঁরা বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে ভাইরাস ছিল। তাই দলে নেওয়ার আগে ওঁদের ভাইরাস মুক্ত করতে স্যানিটাইজ করা হল।’ আর বোলপুর বিজেপির নেতা দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘তৃণমূল কংগ্রেসই হল সবচেয়ে বড় ভাইরাস। বিজেপির সাধারণ কর্মীরা নিজেদের বাঁচাতে তৃণমূল কংগ্রেসে যাচ্ছেন।’‌

বন্ধ করুন