বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Cooperative election: বসিরহাটে সমবায় সমিতির নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় তৃণমূলের

Cooperative election: বসিরহাটে সমবায় সমিতির নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় তৃণমূলের

সমবায় সমিতি নির্বাচনে জয়ী তৃণমূল কংগ্রেস। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে এএনআই)

এই সমবায় সমিতিতে ২০১৭ সালে আসন সংখ্যা ছিল ৬টি। তবে এবার সেখানে আরও তিনটি আসন বেড়েছে। কোনও বিরোধী এই সমবায় সমিতির নির্বাচনে মনোনয়পত্র জমা না দেওয়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হল তৃণমূল কংগ্রেস।

পঞ্চায়েত ভোটের আগে আরও একটি সমবায় সমিতি নির্বাচনে জয় জয়কার তৃণমূল কংগ্রেসের। পাঁশকুড়ার রাতুলিয়া সমবায় সমিতির পর এবার উত্তর চব্বিশ পরগনার বসিরহাটে একটি সমবায় সমিতির নির্বাচনে জয় পেল তৃণমূল কংগ্রেস। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সেখানে জয়ী হয়ে পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে মাটি আরও শক্ত করল শাসক দল।

বসিরহাটের ১নং ব্লকের নিমদাঁড়িয়া-কোদালিয়া কৃষি উন্নয়ন সমবায় সমিতির নির্বাচন হয়েছিল। এই সমবায় সমিতিতে ২০১৭ সালে আসন সংখ্যা ছিল ৬টি। তবে এবার সেখানে আরও তিনটি আসন বেড়েছে। কোনও বিরোধী এই সমবায় সমিতির নির্বাচনে মনোনয়পত্র জমা না দেওয়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হল তৃণমূল কংগ্রেস। এর আগেও সেখানে নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। এবারও সেই ধারায় বজায় থাকল।

এই জয়ের ফলে খুশি স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। তাদের বক্তব্য, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বাংলায় যেভাবে উন্নয়ন হচ্ছে বিরোধীরা তা দেখতে পাচ্ছে। তাই হেরে যাওয়ার ভয়ে তারা মনোনয়ন জমা দেয়নি। উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের সদস্য শাহনুর মণ্ডল জানান, ‘ওই এলাকায় বিরোধীদের কোনও অস্তিত্ব নেই। আমরা চেয়েছিলাম সেখানে বিরোধীরা লড়ুক। কিন্তু বিরোধীদের কোনও অস্তিত্ব না থাকার কারণে হয়তো কেউ প্রার্থী দেয়নি।’ একই সঙ্গে লক্ষ্মীর ভান্ডার থেকে শুরু করার স্বাস্থ্য সাথী এবং অন্যান্য বিভিন্ন প্রকল্পের ফলে মানুষ তৃণমূলের পক্ষে বলে তিনি মনে করেন। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগে পাঁশকুড়ার রাতুলিয়া সমবায় সমিতি নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসের।

বন্ধ করুন