বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Basanti TMC: ‘চলো গ্রামে যাই’, কর্মসূচিতে ডাক না পেয়ে TMC MLA-কে ঘিরে দলেরই কর্মীদের বিক্ষোভ

Basanti TMC: ‘চলো গ্রামে যাই’, কর্মসূচিতে ডাক না পেয়ে TMC MLA-কে ঘিরে দলেরই কর্মীদের বিক্ষোভ

বিধায়ককে ঘিরে বিক্ষোভ। নিজস্ব ছবি

দলের কর্মসূচিতে এলাকার তৃণমূল কর্মীদের না ডেকে বহিরাগতদের নিয়ে বিধায়ক গ্রামে কর্মসূচি করছেন বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় মহিলা তৃণমূল নেত্রীর। আর সেই অভিযোগ তুলেই বিধায়কের সামনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা।

পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে জনসংযোগ বাড়াতে তৎপর হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। সেই লক্ষ্যে রাজ্যজুড়ে গ্রামে গিয়ে ‘চলো গ্রামে যাই’ কর্মসূচি চালাচ্ছে রাজ্যের শাসক দল। আর তৃণমূলের সেই কর্মসূচিতেই সামনে এল গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। বিধায়কের কর্মসূচিকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখালেন তৃণমূলেরই কর্মীরা। এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়। ঘটনাটি দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তী বিধানসভার উত্তর মোকামবেরিয়া অঞ্চলের।

আজ শনিবার তৃণমূল কংগ্রেসের ডাকে উত্তর মোকামবেরিয়া অঞ্চলে চলো গ্রামে যাই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এই কর্মসূচির সূচনা করতে আসেন বাসন্তীর বিধায়ক শ্যামল মণ্ডল। সেই সময় বিধায়ককে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান এলাকার তৃণমূল কর্মীদের একাংশ। দলের কর্মসূচিতে এলাকার তৃণমূল কর্মীদের না ডেকে বহিরাগতদের নিয়ে বিধায়ক গ্রামে কর্মসূচি করছেন বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় মহিলা তৃণমূল নেত্রীর। আর সেই অভিযোগ তুলেই বিধায়কের সামনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা। তাদের দাবি, অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী সমর্থকদের বাদ দিয়ে এই কর্মসূচি শুরু করা হচ্ছিল।

মনীষা ঘরাল নামে এক তৃণমূল কর্মীর অভিযোগ, এই কর্মসূচিতে এলাকার মহিলা নেতৃত্বরা ডাক পাননি। বিধায়ক বাইরে থেকে লোক এনে এই কর্মসূচি করেছেন। যদিও বিধায়ক এই অভিযোগ অস্বীকার করেন। সামান্য সমস্যা হলেও তা মিটে গিয়েছে বলেই দাবি বিধায়কের। তবে এই ঘটনায় বাসন্তীতে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ফের প্রকাশ্যে এল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

বন্ধ করুন