বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > করোনা রুখতে এবার থেকে সপ্তাহে ১ দিন করে বন্ধ বাজার, সিদ্ধান্ত হাওড়া পুরনিগমের
করোনা রুখতে এবার থেকে সপ্তাহ ১ দিন করে বন্ধ বাজার, সিদ্ধান্ত হাওড়া পুরনিগমের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস)
করোনা রুখতে এবার থেকে সপ্তাহ ১ দিন করে বন্ধ বাজার, সিদ্ধান্ত হাওড়া পুরনিগমের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস)

করোনা রুখতে এবার থেকে সপ্তাহে ১ দিন করে বন্ধ বাজার, সিদ্ধান্ত হাওড়া পুরনিগমের

  • তবে কোনও একদিন সব বাজার বন্ধ থাকবে না। নির্দিষ্ট দিনে নির্দিষ্ট বাজার বন্ধ থাকবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে আরও কঠোর পদক্ষেপ করল হাওড়া পুরনিগম। আগামী বৃহস্পতিবার থেকে সপ্তাহে একদিন হাওড়ায় বাজার বন্ধ থাকবে। অনির্দিষ্টকালের জন্য সেই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। তবে কোনও একদিন সব বাজার বন্ধ থাকবে না। নির্দিষ্ট দিনে নির্দিষ্ট বাজার বন্ধ থাকবে।

হাওড়ার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসেছিল পুরনিগম এবং স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা। সেখানেই অনির্দিষ্টকালের জন্য প্রতি সপ্তাহে একদিন বাজার বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পুরনিগম সূত্রে খবর, সব বাজার কোনও একদিন বন্ধ থাকবে না। বৃহস্পতিবার দাশনগর, ডোমজুড় এবং বালি এলাকার সমস্ত বাজার বন্ধ থাকবে। শুক্রবার বোটানিকাল গার্ডেনের বাজার খোলা যাবে না। লিলুয়া ও ব্যাঁটরার সব বাজার বন্ধ থাকবে শনিবার। রবিবার বেলুড় ও চ্যাটার্জি হাটের বাজার, সোমবার সাঁকরাইল, শিবপুরের বাজার বন্ধ রাখতে হবে। মঙ্গলবার বন্ধ থাকবে সাঁতরাগাছি এবং হাওড়ার বাজার। জগাছা এবং গোলাবাড়ি এলাকার বাজার বুধবার বন্ধ রাখতে হবে।

বুধবার পুরনিগম প্রশাসকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান অরূপ রায় জানিয়েছেন, সেই নির্দেশ কার্যকর করার জন্য সংশ্লিষ্ট থানাগুলিকে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি নির্দিষ্ট দিনে বাজার বন্ধের নির্দেশ অমান্য করে ব্যবসায়ীরা দোকান খুললে কড়া পদক্ষেপেরও হুঁশিয়ারি দিয়েছে হাওড়া পুরনিগম।

এমনিতেই করোনার সংক্রমণ রুখতে রবিবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত লিলুয়া, সালকিয়া, বেলুড়, ঘুসুড়ির মতো এলাকায় বাজার বন্ধ ছিল। সেইসঙ্গে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে কন্টেনমেন্ট জোন এবং মাইক্রো কনটেনমেন্ট জোন করা হয়েছে। অর্থাৎ আরও গণ্ডিবদ্ধ করা হয়েছে হাওড়াকে। স্থানীয়ভাবে সংক্রমণ রোধে বিশেষভাবে জোর দেওয়া হচ্ছে। জেলাশাসক মুক্তা আর্য জানান, রাজ্য সরকার স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে যে নিম্নমুখী সংক্রমণ দেখেই রাশ আলগা করা যাবে না। কোনওভাবেই বাড়তে দেওয়া যাবে না সংক্রমণ। সেজন্য কড়া নজরদারি চালানো হচ্ছে। নেওয়া হচ্ছে কড়া ব্যবস্থা।

বন্ধ করুন