বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Toy Train: টয় ট্রেনেই রেস্তরাঁ, মোমো থেকে মোগলাই, NJP স্টেশনে নয়া উদ্যোগ

Toy Train: টয় ট্রেনেই রেস্তরাঁ, মোমো থেকে মোগলাই, NJP স্টেশনে নয়া উদ্যোগ

পাহাড়ে গেলে টয় ট্রেনের মজা নিতে চান অনেকেই (Facebook and Instagram)

রেল সূত্রে খবর, দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনেই রেলের কামরাকে কাজে লাগিয়ে কোচ রেস্তরাঁ তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এবার সাধারণ ট্রেনের কামরা দিয়ে নয়, টয় ট্রেনের কামরা দিয়ে কোচ রেস্তরাঁ তৈরির উদ্যোগ।

এনজেপিতে নামার পরেই পর্যটকদের যেন দুহাত দিয়ে ডাকে কাঞ্চনজঙ্ঘা। আর টয় ট্রেনে চেপে দার্জিলিংয়ে ঘোরার মজাই আলাদা। তবে এবার সেই টয় ট্রেনের কামরাকে কাজে লাগিয়েই কোচ রেস্তরাঁ তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। ইতিমধ্যেই তার প্রাথমিক পরিকল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে। এদিকে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনের আধুনিকীকরণের ব্যাপারে ইতিমধ্যেই বিস্তারিত পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভার্চুয়াল মাধ্যমে এনিয়ে বড় পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন। সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজও শুরু হয়েছে। তবে এবার সেই পরিকল্পনার অঙ্গ হিসাবে এনজেপিতে টয় ট্রেনের কামরাকে কাজে লাগিয়ে কোচ রেস্তরাঁ তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। ঠিক কেমন হবে বিষয়টি?

রেল সূত্রে খবর, দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনেই রেলের কামরাকে কাজে লাগিয়ে কোচ রেস্তরাঁ তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এবার সাধারণ ট্রেনের কামরা দিয়ে নয়, টয় ট্রেনের কামরা দিয়ে কোচ রেস্তরাঁ তৈরির উদ্যোগ। সব মিলিয়ে টয় ট্রেনের কামরা দিয়ে রেস্তরাঁ তৈরির উদ্যোগ নিঃসন্দেহে অভিনব। ইতিমধ্যেই এনজেপিতে তার কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে। একদিকে টয় ট্রেনের ঐতিহ্য আর অন্যদিকে আধুনিকতার মিশেলে একেবারে অন্যন্য অভিজ্ঞতা হতে পারে পর্যটকদের।

এদিকে এর আগে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনের বাইরে এক কোচ রেস্তরাঁ তৈরি হয়েছে। এবার এনজেপি স্টেশনের মধ্যে তৈরি হচ্ছে অপর কোচ রেস্তরাঁ।

সিপিআরএ সব্যসাচী দে জানিয়েছেন, আমাদের পুরো স্টেশনটিই নতুন করে উন্নয়ন করা হচ্ছে। কোনও একটি প্লাটফর্ম নয় পুুরোটাই রি ডেভলপ করা হবে। কোচ রেস্টুরেন্ট আমাদের একটা ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। সব জায়গাতেই আমরা কোচ রেস্টুরেন্ট তৈরি করছি। তবে এনজেপির বিশেষত্ব হল এখানে ন্যারোগেজ লাইনের ব্যবস্থা রয়েছে। ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের এটা একটা সম্পদ। সেটা নিয়েই আমরা কোচ রেস্তরাঁ বানাচ্ছি। ইতিমধ্যেই বাইরে অন্য একটি রেস্তরাঁ চালু হয়েছে। সেটার প্রতি আকর্ষণ ভালোই রয়েছে। আমাদের আশা ভেতরেরটা আরও সুন্দর হবে।

এনজেপিতে নেমেই কোনও পর্যটক যদি টয় ট্রেনে চড়ার মজা নিতে চান তবে তাঁকে যেতেই হবে এই কোচ রেস্তরাঁতে। টয় ট্রেনের কামরায় বসে আপনি পেতে পারেন মোমো থেকে মোগলাই। এক অন্যরকম ভালোলাগাকে সঙ্গে নিয়ে আপনি পাহাড়মুখী হতে পারবেন। এদিকে এই রেস্তরাঁর মাধ্যমে একদিকে যেমন রেলের আয় বাড়বে তেমনি এনজেপিতে আসা পর্যটক কিংবা সাধারণ যাত্রীদের কাছেও এটা বাড়তি পাওনা হিসাবে থেকে যাবে।

 

বন্ধ করুন