বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > অনুব্রত কর্মিসভায় আদিবাসী মহিলা তৃণমূলকর্মীর হাত থেকে কেড়ে নেওয়া হল মাইক্রোফোন
অনুব্রত মণ্ডল। ফাইল ছবি
অনুব্রত মণ্ডল। ফাইল ছবি

অনুব্রত কর্মিসভায় আদিবাসী মহিলা তৃণমূলকর্মীর হাত থেকে কেড়ে নেওয়া হল মাইক্রোফোন

  • এদিন তৃণমূল পরিচালিত নগরি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের বিরুদ্ধে দলের এক মহিলা কর্মী গুরুতর অভিযোগ করেন। মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি বলতে শুরু করেন, পঞ্চায়েতে আমাকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না।

ফের অনুব্রত মণ্ডলের কর্মিসভায় দলীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে মুখ খোলায় মাইক্রোফোন কেড়ে নেওয়া হল এক তৃণমূলকর্মীর সামনে থেকে। বৃহস্পতিবার সিউড়ি ১ নম্বর ব্লকের কর্মিসভার সময় এই ঘটনা ঘটে। ঘটনায় তৃণমূলকে বিঁধতে ছাড়েনি বিজেপি। তাদের দাবি, যে অভিযোগ এতদিন বিরোধীরা করছিল, তা এখন নিজের দলের কর্মীদের মুখেই শুনতে হচ্ছে কেষ্টবাবুকে। 

বিধানসভা নির্বাচনের আগে অনুব্রত মণ্ডলের কর্মিসভা সোশ্যাল সাইটে সরাসরি সম্প্রচার করছে তৃণমূল। আর তাতে মাঝে মাঝেই বেজে উঠছে বিদ্রোহের সুর। সেই বিদ্রোহ চাপা দিতে কখনো ধমক, কখনো আবার মাইক্রোফোন সরিয়ে নেওয়ার রাস্তায় হাঁটছে তৃণমূল নেতৃত্ব। যেমন হল শুক্রবার।

এদিন তৃণমূল পরিচালিত নগরি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের বিরুদ্ধে দলের এক মহিলা কর্মী গুরুতর অভিযোগ করেন। মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি বলতে শুরু করেন, পঞ্চায়েতে আমাকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না। আদিবাসী হওয়ায় আমার কথা শোনা হয় না। এই পর্যন্ত বলার পরই মহিলার সামনে থেকে মাইক্রোফোন সরিয়ে নেন আয়োজকরা। 

ঘটনায় শাসকদলকে বিঁধেছে বিজেপি। তাদের দাবি, ‘তৃণমূলে বিরোধিতার কোনও পরিসর নেই। নেতৃত্বের বিরুদ্ধে মুখ খুললেই শাস্তির মুখে পড়তে হয়। অভিযোগ করার সুযোগ না থাকলে লোকদেখানো কর্মিসভা কেন করছেন অনুব্রত। আর সেই কর্মিসভা সরাসরি সম্প্রচারেরই বা দরকার কি? বিজেপিতে অনুকরণ করতে গিয়ে ফেঁসে গিয়েছে তৃণমূল।’

 

বন্ধ করুন