মঙ্গলবার গভীর রাতে স্থানীয়দের ক্যামেরায় ধরা পড়েছে অজানা প্রাণীর এই ছবি। যা দেখে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাঘরোল
মঙ্গলবার গভীর রাতে স্থানীয়দের ক্যামেরায় ধরা পড়েছে অজানা প্রাণীর এই ছবি। যা দেখে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাঘরোল

রাত বাড়লেই বাল্বের মতো জ্বলছে চোখ, ওরে বাবা! ওটা কী দুর্গাপুরে?

  • ওই এলাকাতেই রয়েছে দুর্গাপুর স্টিল প্ল্যান্টের সেন্ট্রাল স্টোর। অজানা প্রাণী বেরোনোর খবরে তার নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

জঙ্গলমহল, নদিয়া, কোন্নগর পেরিয়ে এবার দুর্গাপুরে অজানা জন্তুর আতঙ্ক। শহরের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের দাবি, সন্ধে নামলেই শুরু হচ্ছে তার আনাগোনা। অজানা প্রাণীর ভয়ে এলাকা ছেড়ে পথকুকুররাও।

দুর্গাপুর শহরের বেনাচিতির ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের দাবি, রাত নামলেই সেখানে ঘোরাফেরা করছে বেশ বড় আকারের কোনও প্রাণী। মঙ্গলবর রাতে তার ছবিও তুলেছেন স্থানীয়রা। তাতে দেখা যাচ্ছে, জ্বলজ্বল করছে চোখ। পাঁচিলের ওপর বসে রয়েছে প্রাণীটি। অনেকে না কি হালুম-হুলুমও শুনেছেন। মিলেছে পায়ের ছাপও। অনেকের দাবি, প্রাণীটি বাঘ।

ওই এলাকাতেই রয়েছে দুর্গাপুর স্টিল প্ল্যান্টের সেন্ট্রাল স্টোর। অজানা প্রাণী বেরোনোর খবরে তার নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে CISF-এর পাহারা।

যদিও বাঘের তত্ত্ব একেবারে উড়িয়ে দিয়েছেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞরা। স্থানীয় এক বন আধিকারিক জানিয়েছেন, বেনাচিতির ওই এলাকার পাশেই রয়েছে বিস্তীর্ণ জলাভূমি। সেখান বাঘরোল বা মেছো বিড়ালের বাস। তেমনই একটি মেছো বিড়াল ঢুকে পড়েছিল বসতিতে। বাঘরোলকে দেখতে ছোটখাটো বাঘেরই মতো। তবে গায়ের রং ধূসর। বাঘের মতো ডোরাও রয়েছে তার গায়ে। ফলে অনেকেই বাঘ বলে ভুল করেন। কিন্তু এই প্রাণী সচরাচর মানুষের কোনও ক্ষতি করে না। খুব বেশি হলে কয়েকটা মুরগি খেতে পারে।



বন্ধ করুন