বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বাংলায় আসছেন যোগী, কেন্দ্রের ছয় মন্ত্রীকে প্রচারের বিশেষ দায়িত্ব দিচ্ছে বিজেপি
যোগী আদিত্যনাথ 
যোগী আদিত্যনাথ 

বাংলায় আসছেন যোগী, কেন্দ্রের ছয় মন্ত্রীকে প্রচারের বিশেষ দায়িত্ব দিচ্ছে বিজেপি

  • ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনকে এভাবেই দেখছে বিজেপি। তাই এই মিশনকে সফল করতে উত্তরপ্রদেশ সরকারের অভিজ্ঞ নেতা–মন্ত্রীদের এখানে নিয়ে আসা হচ্ছে।

‘‌মিশন বেঙ্গল’‌। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনকে এভাবেই দেখছে বিজেপি। তাই এই মিশনকে সফল করতে উত্তরপ্রদেশ সরকারের অভিজ্ঞ নেতা–মন্ত্রীদের এখানে নিয়ে আসা হচ্ছে। যা নিয়ে রীতিমতো চর্চা শুরু হয়ে গিয়েছে। কারণ ইতিমধ্যেই দিল্লির নেতাদের দায়িত্ব দিয়ে বাংলায় পাঠানো হয়েছে। তারপর এমন কী প্রয়োজন পড়ল উত্তরপ্রদেশ থেকে নেতা–মন্ত্রী এই রাজ্যে নিয়ে আসতে হবে?‌ উঠছে প্রশ্ন।

জানা গিয়েছে, মানুষের কাছ থেকে মতামত সংগ্রহ করবেন এবং সেই সংক্রান্ত রিপোর্ট বিজেপি’‌র সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা বা অমিত শাহের হাতে তুলে দেবেন। এই প্রক্রিয়া চলবে লোকসভা কেন্দ্র ধরে ধরে। বাংলার ৪২টি লোকসভা আসনের মধ্যে প্রত্যেক মন্ত্রীকে ৬টি করে লোকসভার দায়িত্ব দেওয়া হবে বলেই সূত্রের খবর। কেন্দ্রীয় জাহাজ মন্ত্রী মনসুখ মান্ডব্য, জলশক্তি মন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত, আদিবাসী বিষয়ক মন্ত্রী অর্জুন মুন্ডা, পর্যটন ও সংষ্কৃতি মন্ত্রী প্রহ্লাদ সিং প্যাটেল এবং পশুপালন মন্ত্রী সঞ্জীব বালিয়ানের নাম এই তালিকায় রয়েছে। পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশের উপ–মুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্য্য এবং মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্রকে এই তালিকায় রাখা হয়েছে।

এদের পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথও এই রাজ্যে সফরে আসবেন। রাজ্য বিজেপি’‌র সভাপতি বুথস্তরে সংগঠন শক্তিশালী করবেন। উত্তরপ্রদেশের উপ–মুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্য্য ওবিসি নেতাদের নিয়ে ৩০টি বিধানসভা কেন্দ্রে কাজ করবেন। তার মধ্যে হাওড়া, শ্রীরামপুর, আরামবাগ এবং উলুবেড়িয়া রয়েছে। কেন্দ্রীয় পর্যটনমন্ত্রী প্রহ্লাদ সিং প্যাটেলকে ৬টি লোকসভায় কাজ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় নৌ পরিবহণ মন্ত্রী মনসুখ মাণ্ডব্যকে ৬টি লোকসভা কেন্দ্রে নির্বাচনের প্রস্তুতিকাজের তদারকির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় জলবিদ্যুৎমন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াতকে বাংলার ৫টি লোকসভা কেন্দ্রের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় রাজ্য প্রতিমন্ত্রী সঞ্জীব বালিয়ানকে বাংলার ৫টি লোকসভা কেন্দ্রের নির্বাচনী প্রস্তুতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় উপজাতি কল্যাণ মন্ত্রী অর্জুন মুণ্ডাকেও বাংলার ৫টি লোকসভা কেন্দ্রের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এই বিষয়ে উত্তরপ্রদেশ বিজেপি’‌র মুখপাত্র নবীন শ্রীবাস্তব বলেন, ‘‌এখন আমাদের কাছে একটা বড় টার্গেট রয়েছে। ২০০টি আসন জিততে হবে। কারণ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শাসনকালে আমরা ৪০ শতাংশ ভোট পেয়েছে। অর্থাৎ ১৮টি লোকসভা আসন। সেক্ষেত্রে আমাদের বিধানসভায় আরও ভাল ফল করা উচিত। আমাদের নেতাদের উপর আক্রমণ নেমে আসছে। তবে লিখে দিতে পারি আমরা এবার ইতিহাস তৈরি করব।’‌

বিজেপি সূত্রের খবর, মন্ত্রীদের দায়িত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে নানা হিসেব নিকেশ মাথায় রাখা হয়েছে। জাহাজমন্ত্রী মাণ্ডব্যকে হলদিয়া ও তার আশপাশের এলাকাগুলিতে জোর দিতে বলা হয়েছে। আবার মুন্ডাকে পূর্ব মেদিনীপুর ও আদিবাসী অধ্যুষিত ঝাড়গ্রামের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কলকাতার সমস্ত আসনগুলির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে শেখাওয়াতকে। প্যাটেল দেখবেন উত্তরবঙ্গের লোকসভা আসনগুলি। হাওড়ার অঞ্চলের আসনগুলি মৌর্য্য এবং মুর্শিদাবাদ ও নদীয়ার আসনগুলির উপর বালিয়ানকে নজর দিতে বলা হয়েছে। এঁরা প্রত্যেকেই ‘গৃহ সম্পর্ক অভিযান’ অর্থাৎ মানুষের বাড়ি বাড়ি ঘুরে কথা বলবেন, বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের সঙ্গে বৈঠক করবেন। কেন্দ্র সরকারের বিভিন্ন কর্মসুচি নিয়ে প্রচার করবেন।

এছাড়া দু’‌রাজ্যের সিনিয়র মন্ত্রী পরিষদকেও বাংলায় নিয়োগ করা হয়েছে। উত্তরপ্রদেশের উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব মৌর্যকে বাংলার হাওড়া ও হুগলির ৩টি লোকসভা কেন্দ্রের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। মধ্যপ্রদেশের প্রবীণ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্রকেও বাংলার নির্বাচনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। নরোত্তম মিশ্র বাংলার বর্ধমান অঞ্চলের ৩টি লোকসভা কেন্দ্রের কাজ দেখবেন। আগামী সপ্তাহ থেকেই পুরোদমে কাজ শুরু করে দেবেন এই সমস্ত মন্ত্রীরা। তাঁদেরকে চলতি মাসের শেষেই নাড্ডার হাতে রিপোর্ট তুলে দেওয়ার সময়সীমা দেওয়া হয়েছে। জানুয়ারি মাস থেকেই খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলার প্রচারের লক্ষ্যে সরকারি ও দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করবেন বলেই ঠিক হয়েছে। তবে, নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা হওয়ার পরেই মোদির জনসভা শুরু হবে। বাংলায় প্রধানমন্ত্রীর এক ডজনেরও বেশি জনসভা করার সম্ভাবনা রয়েছে।

বন্ধ করুন