বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ‘তৃণমূলে যোগ দিতে ১০টা সরকারি চাকরি, মোটা টাকা ও মন্ত্রিত্বের লোভ দেখানো হয়েছিল’
সাংসদ খগেন মুর্মু। ফাইল ছবি

‘তৃণমূলে যোগ দিতে ১০টা সরকারি চাকরি, মোটা টাকা ও মন্ত্রিত্বের লোভ দেখানো হয়েছিল’

  • খগেনবাবু বলেন, বিজেপিতে যোগদান করার পরেও পিছু ছাড়েনি তৃণমূল। লাগাতার তারা টাকা ও চাকরির বিনিময়ে দলবদলের প্রস্তাব দিয়ে চলেছে।

মোটা টাকা ও সরকারি চাকরির প্রলোভন দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। তৃণমূলে যোগদানের জল্পনার মধ্যেই বিস্ফোরক দাবি উত্তর মালদার বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মুর। অভিযোগ অস্বীকার করেছে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব।

শনিবার খগেনবাবু বলেন, আমি যখন থেকে সিপিএম ছাড়ার পরিকল্পনা করি তখনই তৃণমূলে যোগদানের প্রস্তাব এসেছিল। জেলা তৃণমূলের এক শীর্ষনেতা। তিনি আমাকে বলেন, তৃণমূলে যোগ দিলে ১০টি সরকারি চাকরি বরাদ্দ হবে আমার পরিবার ও অনুগামীদের জন্য। তার মধ্যে SSC-র চাকরিও রয়েছে। এছাড়া মোটা অংকের টাকা ঢুকবে আমার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে। সঙ্গে মন্ত্রিত্বও দেবে আমাকে। কিন্তু তৃণমূলের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে আমি বিজেপিতে যোগদান করি।

খগেনবাবু বলেন, বিজেপিতে যোগদান করার পরেও পিছু ছাড়েনি তৃণমূল। লাগাতার তারা টাকা ও চাকরির বিনিময়ে দলবদলের প্রস্তাব দিয়ে চলেছে।

খগেনবাবুর দাবি উড়িয়ে মালদা শহর তৃণমূল সভাপতি নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি বলেন, ‘উনি এত বড় নেতা নন যে ওনাকে উপুড় হয়ে স্বাগত জানাতে হবে। মানুষ তৃণমূলের সঙ্গে রয়েছে। আমাদের আর কাউকে দরকার নেই।’

খগেনবাবু তৃণমূলে যোগদান করতে পারেন বলে দিন কয়েক ধরে জল্পনা চলছিল। এরই মধ্যে শনিবার মালদায় শুভেন্দু অধিকারী, সুকান্ত মজুমদারের কর্মসূচিতে যোগদান করেন তিনি। শুভেন্দু অধিকারী স্পষ্ট করেন, বিজেপিতেই থাকছেন খগেন মুর্মু।

 

বন্ধ করুন