বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > তৃণমূল কর্মীদের ‘চাকর-বাকর’ মনে করেন অনেকা নেতা, ক্ষমতাচ্যুতের হুঁশিয়ারি রাজীবের
রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)
রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)

তৃণমূল কর্মীদের ‘চাকর-বাকর’ মনে করেন অনেকা নেতা, ক্ষমতাচ্যুতের হুঁশিয়ারি রাজীবের

  • পার্থের সঙ্গে বৈঠকের পরও যে ‘সুরে’ বাজছেন না রাজীব, আবারও সেই প্রমাণ মিলল।

তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে দু'বার বৈঠক করেছেন। কিন্তু তারপরও যে ‘সুরে’ বাজছেন না বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, আবারও সেই প্রমাণ মিলল। দলের নেতাদের সরাসরি হুঁশিয়ারি দিয়ে জানালেন, যে নেতারা কর্মীদের ‘চাকর-বাকর’ মনে করেন, তাঁদের আগামিদিনে ক্ষমতাচ্যুত হতে হবে।

রবিবার হাওড়ার ডোমজুড়ে একটি রক্তদান শিবিরে গিয়ে রাজীব বলেন, ‘আমারও এক-এক সময় বলতে খুব খারাপ লাগে, যাঁরা শুধু তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের নাম ভাঙিয়ে খান। অনেক এরকম নেতা বাজারে বেরিয়েছেন। কর্মীদের কথা বলেন শুধু কর্মীদের ব্যবহার করার জন্য। আর কাছে গেলে কী দুর্ব্যবহার করেন, সেটা….আমি সেইসব নেতাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে গেলাম, যাঁরা শুধু মনে করবেন যে কর্মীদের ভাবাবেগ নিয়ে খেলবেন, কর্মীরা তাঁদের কাছে আছেন বলে খালি কর্মীরা চাকর-বাকর। সেই চাকর-বাকর..।’

রাজীবের হুঁশিয়ারি, যে নেতারা দলের নীচুতলার কর্মীদের দমিয়ে রাখতে চান, আগামিদিনে তাঁদের ক্ষমতাচ্যুত করবেন সেই কর্মীরাই। মন্ত্রীর কথায়, ‘একজন কর্মী গেলে তাঁদের সঙ্গে কী ব্যবহার করেন, মানুষ তা জানেন, কর্মীদের সবসময় তাঁদের ঔদ্ধত্য, তাঁদের আমিত্ব, তাঁদের অহংকার - এমন একটা জায়গায় পৌঁছেছে.... আমি হুঁশিয়ারি দিয়ে গেলাম, আগামিদিনে সবাইকে গর্জে উঠতে হবে এদের বিরুদ্ধে।’

কিন্তু দলের শীর্ষ নেতার সঙ্গে দু'দফায় বৈঠকের পর এখনও কেন ‘বেসুরো’ রাজীব? রাজনৈতিক মহলের একাংশের বক্তব্য, বৈঠক হলেও তাতে কোনও রফাসূত্র মেলেনি। পার্থের বাড়ি থেকে বেরিয়ে দলের বিরুদ্ধে কোনও বিরূপ মন্তব্য করেননি রাজীব। বরং বলেছিলেন, ‘দলের সঙ্গে তাঁর কোনও দূরত্ব নেই।’ কিন্তু তাঁর ‘বিদ্রোহ’-এ লাগাম টানা যায়নি। রবিবারের সেই ঘটনায় তা আরও একবার সামনে চলে এসেছে।

রাজীবের সেই মন্তব্যে অবশ্য ‘বিদ্রোহ’-এর কিছু দেখতে পাননি হাওড়া জেলা তৃণমূলের চেয়ারম্যান অরূপ রায়। বরং জেলার রাজনীতিতে রাজীব-বিরোধী হিসেবে পরিচিত নেতা জানান, বনমন্ত্রী ঠিকই বলেছেন। কর্মীদের প্রতি ঔদ্ধত্য একেবারেই কাম্য নয়। তবে তাঁর সামনে কর্মীদের সঙ্গে কোনও নেতা এরকম রূঢ় আচরণ করেননি বলেই জানিয়েছেন অরূপ।

বন্ধ করুন