বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > WBJEE Exam 2021: জয়েন্টের দিন পরীক্ষার্থীদের স্পেশাল ট্রেনে উঠতে দেওয়া হোক, রেলকে আর্জি রাজ্যের
জয়েন্টের দিন পরীক্ষার্থীদের স্পেশাল ট্রেনে উঠতে দেওয়া হোক, রেলকে আর্জি রাজ্যের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
জয়েন্টের দিন পরীক্ষার্থীদের স্পেশাল ট্রেনে উঠতে দেওয়া হোক, রেলকে আর্জি রাজ্যের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

WBJEE Exam 2021: জয়েন্টের দিন পরীক্ষার্থীদের স্পেশাল ট্রেনে উঠতে দেওয়া হোক, রেলকে আর্জি রাজ্যের

  • জয়েন্ট পরীক্ষার সঙ্গে যাঁরা যুক্ত থাকবেন, তাঁদেরও স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে উঠতে দেওয়ার আর্জি জানানো হয়েছে।

জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষার দিন বিশেষ ট্রেনে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ওঠার অনুমতি দেওয়া হোক। এমনই অনুরোধ জানিয়ে রেলকে চিঠি দিল পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

আগামী ১৭ জুলাই (শনিবার) রাজ্য জয়েন্ট এন্ট্রাস পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৯২,৬৯৫। কিন্তু এখনও রাজ্যে লোকাল ট্রেন পরিষেবা শুরুর করার অনুমতি দেয়নি রাজ্য সরকার। আগামী ৩০ জুলাই পর্যন্ত লোকাল ট্রেন চালানো যাবে না বলে বুধবারই জানানো হয়েছে। শুধুমাত্র রেলের নিজস্ব কর্মী ও জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের জন্য স্টাফ স্পেশাল ট্রেন চলছে। তাতে আমজনতাকে উঠতে দেওয়া হচ্ছে না। সেই পরিস্থিতিতে কীভাবে প্রার্থীরা পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছাবেন, তা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। তাঁদের বক্তব্য, ৫০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে সরকারি এবং বেসরকারি বাস চললেও তা পর্যাপ্ত নয়। জেলার বিভিন্ন প্রান্তে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার পরও অনেক সময় বাস পাওয়া যায় না।

সেই উৎকণ্ঠার মধ্যেই বৃহস্পতিবার পূর্ব এবং দক্ষিণ-পূর্ব রেলকে চিঠি পাঠিয়ে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের বিশেষ ট্রেনে ওঠার অনুমতি দেওয়ার অনুরোধ করেছে পরিবহণ দফতর। চিঠিতে জানানো হয়েছে, জয়েন্টের অ্যাডমিট কার্ড দেখে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ট্রেনে উঠতে দেওয়া হোক। একইভাবে জয়েন্ট পরীক্ষার সঙ্গে যাঁরা যুক্ত থাকবেন, তাঁদেরও স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে উঠতে দেওয়ার আর্জি জানানো হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে রেলের তরফে আপাতত কিছু জানানো হয়নি। তবে মঙ্গলবার রেলের তরফে জানানো হয়েছিল, শুক্রবার থেকে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করার জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি সেরে রাখা হয়েছে। পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক একলব্য চক্রবর্তী জানিয়েছিলেন, যেভাবে মানুষ স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে ওঠার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন, তাতে রেল কর্তৃপক্ষ চিন্তিত। রাজ্য সরকারকে রেলের উদ্বেগের কথা জানানো হয়েছে। একই সুরে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক গীতা সরকার বলেছিলেন, ‘ট্রেন চালাতে আমরা তৈরি। অপেক্ষা শুধু রাজ্য সরকারের সবুজ সংকেতের।’

বন্ধ করুন