বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'আগে পুর নির্বাচন চেয়েছিলাম, উপ-নির্বাচনে লড়াই করব', বললেন দিলীপ
দিলীপ ঘোষ। 
দিলীপ ঘোষ। 

'আগে পুর নির্বাচন চেয়েছিলাম, উপ-নির্বাচনে লড়াই করব', বললেন দিলীপ

  • উপ-নির্বাচন নিয়ে ধোপে টেকেনি বিজেপির আপত্তি।

উপ-নির্বাচন নিয়ে ধোপে টেকেনি বিজেপির আপত্তি। তাতে ভবানীপুরের উপ-নির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণার পর বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ দাবি করলেন, আগে পুর নির্বাচন চেয়েছিল গেরুয়া শিবির। তবে যখনই নির্বাচন হোক, বিজেপির লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত।

শনিবার সিউড়িতে দিলীপ বলেন, ‘উপ-নির্বাচন হোক। আমরা না বলিনি। আমরা বলেছিলাম, পরিস্থিতি অনুকূল নয়। আমরা বলেছিলাম, যখন নির্বাচন হবে, তখনই আমরা লড়াই করব। আমরা আগে পুরসভা নির্বাচন চাইছিলাম। রাজ্য নির্বাচন কমিশনঘোষণা করুক। যেটা ঘোষণা হয়েছে, সেটা মেনে ভোট হবে।’

দীর্ঘদিন টানাপোড়েনের পর শনিবার ভবানীপুর কেন্দ্রে উপ-নির্বাচনের দিন ঘোষণা করেছে কমিশন। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর সেখানে ভোটগ্রহণ হবে। তবে বাকি যে কেন্দ্রগুলিতে উপ-নির্বাচন হওয়ার কথা, সেখানে এখনও ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণা করেনি কমিশন। শুধুমাত্র সামশেরগঞ্জ এবং জঙ্গিপুরে ভোট হবে। এমনিতে গত ৫ মে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথগ্রহণ করেছিলেন মমতা। বিধায়ক না হওয়ায় সংবিধানের নিয়ম অনুযায়ী, তাঁকে ছ'মাসের মধ্যে নির্বাচন জিতে আসতে হবে। সেজন্য উপ-নির্বাচনের জন্য মরিয়া হয়ে ঝাঁপায় তৃণমূল। সূত্রের খবর, কমিশনের কাছে সওয়াল করা হয় যে ভবানীপুরে ভোট করা না হলে রাজ্যে সাংবিধানিক সংকট তৈরি হবে। রাজ্যের করোনা পরিস্থিতিও নিয়ন্ত্রণে আছে। সেই যুক্তি মেনে নিয়েছে।

উপ-নির্বাচন নিয়ে ভবানীপুরের জয়ী প্রার্থী (যিনি বিধঝায়ক পদ ছেড়েছেন) শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় জানান, এটাই প্রত্যাশিত ছিল। ভবানীপুরে তো মুখ্যমন্ত্রী লড়াই করবেন। তাই উপ-নির্বাচন প্রয়োজনীয় ছিল। সিপিআইএম নেতা সুজন চক্রবর্তী আবার জানান, নির্দিষ্ট সময় নির্বাচনের পক্ষে সওয়াল করে আসছে বাম শিবির। কিন্তু রাজ্যে স্কুল বন্ধ, লোকাল ট্রেন চলছে না, তখন কেন উপ-নির্বাচন হচ্ছে? আর পুরসভা নির্বাচন কেন হচ্ছে না? কংগ্রেস নেতা প্রদীপ ভটাচার্য বলেন, 'সঠিক সময় চেয়েছিলাম। নির্বাচন কমিশন সঠিক কাজ করেছে।'

বন্ধ করুন