বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ফের ঘূর্ণাবর্ত, নিম্নচাপের প্রভাব কাটতে না কাটতেই ফের ধেয়ে আসছে কালো মেঘ!
দক্ষিণে বিক্ষিপ্ত বর্ষণের পূর্বাভাস। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
দক্ষিণে বিক্ষিপ্ত বর্ষণের পূর্বাভাস। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

ফের ঘূর্ণাবর্ত, নিম্নচাপের প্রভাব কাটতে না কাটতেই ফের ধেয়ে আসছে কালো মেঘ!

  • সপ্তাহান্তে বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণাবর্তের সম্ভাবনা তৈরি হতেই ফের বৃষ্টির পূর্বাভাস।

টানা বৃষ্টির পর নিম্নটাপের প্রভাব থেকে কিছুটা রেহাই পেয়েছে দক্ষিণবঙ্গ। তবে এরই মাঝে ফের বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণাবর্তের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। মঙ্গলবার দিনভর বৃষ্টির পর বুধবার রোদের দেখা পায় কলকাতাবাসী। এরই মধ্যে আবহাওয়া অফিস জানিয়ে দিল যে সপ্তাহের শেষের দিকে ফের ভারী বৃষ্টি হতে পারে দক্ষিণবঙ্গে। সপ্তাহান্তে বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণাবর্তের সম্ভাবনা তৈরি হতেই এই পূর্বাভাস।

এদিকে টানা বৃষ্টির জেরে ক্ষতিগ্রস্ত দক্ষিণবঙ্গের মানুষের জনজীবন। রবিবার রাত থেকে ভারী বৃষ্টি হচ্ছে উপকূলের জেলাগুলিতে। একটানা বৃষ্টির ফলে দক্ষিণবঙ্গের একাধিক উপকূল তীরবর্তী এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। টানা বৃষ্টির জেরে নিচু এলাকাগুলিতে ইতিমধ্যেই জল ঢুকে গিয়েছে। অধিকাংশ রাস্তা জলমগ্ন। এর জেরে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে জারি করা হয়েছে সতর্কবার্তা। সমুদ্র উত্তাল থাকায় মৎস্যজীবীদের গভীর সমুদ্রে যেতে নিষেধ করে মৎস্য দফতর। অবিরাম বৃষ্টির জেরে ইতিমধ্যেই দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুর, বারুইপুর, ক্যানিং, বাসন্তী, গোসাবা, ডায়মন্ডহারবার, কাকদ্বীপ সহ একাধিক জায়গা জলমগ্ন। যদিও, বিকেলের পর থেকে আবহাওয়ার উন্নতি হয়।

এদিকে গত কয়েকদিন ধরে জলোচ্ছ্বাস ও টানা বৃষ্টিতে আতঙ্ক ছড়িয়েছে উপকূলের বাসিন্দাদের মধ্যে। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার উপকূলবর্তী এলাকা নন্দীগ্রাম, খেজুরি, পেটুয়াঘাট, জুনপুট, শৌলা, চাঁদপুর, তাজপুর, মন্দারমণি, শঙ্করপুর-সহ পর্যটনকেন্দ্র এবং দিঘা-সহ সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকার বাসিন্দারা আতঙ্কে ছিলেন। গত কয়েকদিন টানা বৃষ্টি ও জলোচ্ছ্বাসের কারণে বেশ কয়েকটি বাঁধে আবার ফাটল দেখা গিয়েছে।

বন্ধ করুন