বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > শ্মশানঘাটে মায়ের মৃতদেহের সামনে মালাবদল করে বিয়ে করলেন মেয়ে, ইচ্ছেপূরণ বর্ধমানে

শ্মশানঘাটে মায়ের মৃতদেহের সামনে মালাবদল করে বিয়ে করলেন মেয়ে, ইচ্ছেপূরণ বর্ধমানে

মায়ের শেষ ইচ্ছা পূরণ করলেন মেয়ে।

ভাতারের বেরোয়া গ্রামের যুবক জয়দীপ অধিকারীর সঙ্গে পল্লবীর প্রণয়ের সম্পর্ক ছিল। দুই পরিবারের সদস্যরা সে কথা জানতেনও। এমনকী দু’‌জনের বিয়ে দেওয়া নিয়ে প্রাথমিক কথাবার্তাও হয়েছিল। শুধু তারিখটা স্থির হয়নি। পল্লবীর মা নীলিমা দেবী হবু জামাইকে চিনতেন। বিয়ে তাঁর ইহলোক ত্যাগ করার আগে হোক এটাই ছিল শেষ ইচ্ছা। 

মায়ের ইচ্ছা বলে কথা। আর তা তো সন্তানদের রাখতেই হয়। সেটা হতেই পারে মায়ের জীবনের শেষ সময়ে। মা তো এই পৃথিবীর আলোটা দেখিয়েছে। তাই মায়ের ইচ্ছাকে পূর্ণ সম্মান জানানো তো সন্তানদের কর্তব্য। এই কর্তব্যবোধই দেখা গেল বর্ধমানের শ্মশানঘাটে। মা চেয়েছিলেন মেয়েকে বিয়ে দিয়ে নিশ্চিন্তে চোখ বন্ধ করবেন। এটাই ছিল মায়ের ইচ্ছা। কিন্তু সব পরিকল্পনা তো মানুষের ইচ্ছা অনুযায়ী হয় না। তাই মেয়ের বিয়ে না দেখেই তাঁকে চোখ বন্ধ করতে হয়েছিল। কিন্তু মায়ের এই শেষ ইচ্ছা পূরণ করলেন মেয়ে। মায়ের মরদেহ সামনে রেখেই শ্মশানঘাটে মালাবদল করে বিয়ে করলেন মেয়ে। কান্নাভেজা চোখে মায়ের দেহের দিকে তাকিয়ে চোখে জল নিয়ে বিয়ে করলেন মেয়ে। এটাই দেখল পূর্ব বর্ধমানের গুসকরা শহরের রটন্তী কালীর মন্দিরের পাশে থাকা শ্মশানের মানুষজন।

যে বিয়েতে আনন্দ করে খানাপিনা, আড্ডার মধ্যে দিয়ে কাটা উচিত ছিল সেই বিয়ে শুরু হল শোকের মধ্যে দিয়ে। স্থানীয় সূত্রে খবর, গুসকরা শহরের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বিবেকানন্দ পল্লির বাসিন্দা ছিলেন নীলিমা মুখোপাধ্যায়। তিনি বুধবার আত্মঘাতী হন। নীলিমা দেবীর স্বামী ভবানী মুখোপাধ্যায় পেশায় একজন ব্যবসায়ী। ওষুধের দোকান আছে তাঁর। নীলিমা–ভবানীর একমাত্র সন্তান পল্লবী মুখোপাধ্যায় স্নাতক পাশ করে কলকাতায় একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করেন। নীলিমা দেবী দীর্ঘদিন ধরে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। আর তা থেকেই এই আত্মহত্যা। গুসকরা ফাঁড়ির পুলিশ দেহ ময়নাতদন্তে পাঠায়। আর তারপর বুধবার রাতেই নীলিমা দেবীর দেহ তুলে দেওয়া হয় পরিবারের হাতে। তখন শ্মশানে শেষকৃত্য হয়।

আরও পড়ুন:‌ পুরসভার চেয়ারম্যানদের নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠক নবান্নে, ব্রাত্য থাকল তাহেরপুর–ঝালদা‌

কিন্তু মা যে চেয়েছিল মেয়ের বিয়ে দেখে যেতে। সেটা তো তাহলে হল না। আর তাই কলকাতা থেকে দ্রুত বাড়ি ফেরেন পল্লবী। কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। আর শ্মশান ঘাটেই মালাবদল করে বিয়ে করেন নীলিমা দেবীর মেয়ে পল্লবী। মায়ের ইচ্ছাপূরণ করতে গিয়ে শ্মশানে মায়ের দেহ পাশে রেখে প্রেমিকের গলায় মালা পরিয়ে বিয়ে করেন পল্লবী। চোখের জল ভাসিয়ে মালাবদল করতে দেখলেন শ্মশানে থাকা যাত্রীরা এবং পল্লবীর আত্মীয়স্বজন–বন্ধুবান্ধবরা। একইসঙ্গে সাক্ষী থাকলেন প্রেমিক প্রেমিকার সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়ে ঘরণী করলেন। আর গভীর শোকের আবহে এভাবেই সারা জীবনের বন্ধনে আবদ্ধ হলেন তাঁরা।

ভাতারের বেরোয়া গ্রামের যুবক জয়দীপ অধিকারীর সঙ্গে পল্লবীর প্রণয়ের সম্পর্ক ছিল। দুই পরিবারের সদস্যরা সে কথা জানতেনও। এমনকী দু’‌জনের বিয়ে দেওয়া নিয়ে প্রাথমিক কথাবার্তাও হয়েছিল। শুধু তারিখটা স্থির হয়নি। পল্লবীর মা নীলিমা দেবী হবু জামাইকে চিনতেন। তাই বিয়ে তাঁর ইহলোক ত্যাগ করার আগে হোক এটাই ছিল শেষ ইচ্ছা। কিন্তু কর্মব্যস্ত জীবনে তাড়াতাড়ি বিয়ে করা হয়ে ওঠেনি। তবে বিয়ে হবে এটা স্থির ছিল। তাই মায়ের প্রয়াণে তাঁর ইচ্ছাকে এভাবেই সম্মান জানালেন মেয়ে পল্লবী। পাত্রের বাবা মলয় অধিকারী বলেন, ‘ছেলের বিয়ের জন্য প্রস্তুত হচ্ছিলাম। কিন্তু হঠাৎ এমন একটা ঘটনা ঘটল যা পরিস্থিতি পাল্টে দিল। তবে কদিন পর ছেলের বিয়ে উপলক্ষ্যে একটা অনুষ্ঠান করব সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’‌

বাংলার মুখ খবর

Latest News

আর্জেন্তিনা-মরক্কো ম্যাচে ধুন্ধুমার,মাঠে উড়ে এল বোতল-আতসবাজি,হারল বিশ্বকাপজয়ীরা 'জঙ্গিরা প্ররোচিত হতে পারে মমতার কথায়, মিথ্যা বলেছেন’, চটলেন হাসিনারা- রিপোর্ট ৬০ লাখ টাকা দাম উঠেছিল নিটের প্রশ্নের, কতজন পেয়েছিলেন? CBI তদন্তে বিস্ফোরক তথ্য 'অভিনয় করেছি তাই...' ট্রোল্ড হতেই পুরস্কার নিয়ে সটান জবাব 'মহানায়ক' নচিকেতার! হাসপাতালে এসে ‘প্রেম রোগে’ আক্রান্ত বৃদ্ধ, লেডি-ডাক্তারকে লিখলেন লাভ লেটার ‘ওয়াহ, ওয়াহ’, ‘পক্ষপাতিত্বের জন্য’ ঠোঁটে আঙুল দিয়ে স্পিকারকে কটাক্ষ অভিষেকের উত্তমের শেষ ইচ্ছে পূরণ করেননি মহানায়িকা! সুচিত্রার কাছে কী চেয়েছিলেন তিনি? ‘বঞ্চিত’ নয় বাংলা, বাজেটে কোটি-কোটি টাকা পেল কলকাতার বিভিন্ন সংস্থা- রইল তালিকা রাজ্যপালের মানহানির প্রমাণ কোথায়? প্রশ্ন মমতার আইনজীবীর বিচ্ছেদের ঘোষণার পরেও নাতাশার সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে হার্দিকের! কী লিখলেন?

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.