বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পুলিশ, সরকারি চিকিৎসক দিদির কথা শুনে চলে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তোপ অগ্নিমিত্রার
বর্ধমানের সর্বমঙ্গলা মন্দিরে বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল। ছবি সৌজন্য : টুইটার
বর্ধমানের সর্বমঙ্গলা মন্দিরে বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল। ছবি সৌজন্য : টুইটার

পুলিশ, সরকারি চিকিৎসক দিদির কথা শুনে চলে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তোপ অগ্নিমিত্রার

  • এদিন বর্ধমানের প্রায় ১২০০ পরিবার কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি–তে যোগ দান করেন। তাঁদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল।

পেশায় তিনি প্রখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার। গত বছর মার্চ মাসে যোগ দেন বিজেপি–তে। এখন তিনি রাজ্য বিজেপি–র মহিলা মোর্চার সভানেত্রী। সেই অগ্নিমিত্রা পাল এভার সায়ন্তন বসু, দিলীপ ঘোষের পথে হেঁটেই পুলিশের বিরুদ্ধে বেনজির আক্রমণ করে বসলেন। তাঁর কথায়,‌ ‘‌পুলিশের মেরুদণ্ড ভেঙে গিয়েছে।’‌ একইসঙ্গে তৃণমূলের বিরুদ্ধে তোপ দেগে বললেন, ‘‌আমাদের ভয় পেয়েছে তৃণমূল।’‌

সোমবার এক দলীয় কর্মসূচি উপলক্ষে বর্ধমানে যান রাজ্য বিজেপি–র মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা। সকালে রাজ্যবাসীর মঙ্গলকামনায় বর্ধমানে সর্বমঙ্গলা মন্দিরে পুজোও দেন তিনি। এদিন বর্ধমানের প্রায় ১২০০ পরিবার কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি–তে যোগ দান করেন। তাঁদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল। ছিলেন বর্ধমান সদর জেলা বিজেপি সভাপতি সন্দীপ নন্দীও। এই সভামঞ্চ থেকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, তৃণমূল ও পুলিশের ওপর সরাসরি আক্রমণ করলেন বিজেপি নেত্রী।

তিনি বলেন, ‘‌এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী একজন মহিলা। তা সত্ত্বেও সরকার মহিলাদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ। এই সরকার আমাদের ৯ বছর ধরে ঠকিয়েছে। আর মাত্র ৬ মাসের অপেক্ষা। আমরা সরকারে আসছি। সোনার বাংলা গড়ব। বাংলার কোনও মহিলার গায়ে হাত দিলে সেই হাত গুঁড়িয়ে দেব।’‌ অগ্নিমিত্রার অভিযোগ, ‘‌পুলিশ, সরকারি চিকিৎসকরা দিদির কথা শুনে চলে। তাই ধর্ষণ করে খুনের ঘটনাতেও ময়নাতদন্তের রিপোর্টে ধর্ষণ লেখা হয় না। না হলে ডাক্তারদের চাকরি চলে যাবে। বেশিরভাগ পুলিশের শিরদাঁড়া ভেঙে গিয়েছে। ওরা এটা বুঝতেই পারছে না যে ৬ মাস পরে আমাদের সঙ্গেই কাজ করতে হবে। আমাদের ভয় পেয়েছে তৃণমূল। বিজেপি–তে কেউ যাতে যোগ দিতে না পারেন সে কারণে তৃণমূল এখন মহিলাদের ওপরও আক্রমণ করা শুরু করেছে।’‌

বন্ধ করুন