বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'যতবারই করোনার বাড়বাড়ন্ত হয়েছে, ততবারই বলি হয়েছি আমরা'
'যতবারই করোনার বাড়বাড়ন্ত হয়েছে, ততবারই বলি হয়েছি আমরা'। ক্ষোভ মঙ্গলাহাটের ব্যবসায়ীদের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে পিটিআই)
'যতবারই করোনার বাড়বাড়ন্ত হয়েছে, ততবারই বলি হয়েছি আমরা'। ক্ষোভ মঙ্গলাহাটের ব্যবসায়ীদের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে পিটিআই)

'যতবারই করোনার বাড়বাড়ন্ত হয়েছে, ততবারই বলি হয়েছি আমরা'

প্রশাসনের সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হাট ব্যবসায়ীরা।

করোনা পরিস্থিতির কারণে হাওড়ার মঙ্গলাহাট এক সপ্তাহের জন্য বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হাট ব্যবসায়ীরা। সেই নির্দেশ উড়িয়ে দিয়ে দোকান খোলা রাখা হয়েছে।

রবিবার যখন ব্যবসায়ীরা তাঁদের পণ্য সামগ্রী নিয়ে হাট কমপ্লেক্সের ভিতরে আসতে থাকেন, তখন পুলিশ তাঁদের বাধা দেয়। অবরোধ শুরু করেন তাঁরা। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, ‘‌যতবারই কোভিড হয়েছে, ততবারই আমরা বলি হয়েছি। এতগুলি হাট রয়েছে। সব জায়গায় আমাদের ওস্তাগার ভাইরা রয়েছেন। আমাদের পেটের জন্যই এখানে আসা। আজকে আমাদের এই যে রাস্তা অবরোধ, সেটা পেটের জন্যই।’‌

একইসঙ্গে তাঁরা জানান, ‘‌গত বৃহস্পতিবার প্রশাসনের তরফ থেকে বলে দেওয়া হল এক সপ্তাহের জন্য হাট বন্ধ থাকবে। কিন্তু এই যে হাট বন্ধ রাখা হচ্ছে, সে বিষয়ে হাট মালিককে জানানো হয়নি। পাশাপাশি আমাদের যে সমিতি রয়েছে, তাদেরও জানানো হয়নি। আপনাদের কী অসুবিধা হয়, ভবিষ্যতে কীভাবে কাজ করা যায়, কিছুই বলা হয় না। ওঁনারা ওঁনাদের মতো বলেন।’‌

যেহেতু হাসপাতালের পাশেই এই হাটটি বসে, সেজন্য প্রশাসনের তরফ থেকে হাটটিকে আপাতত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেও্য়া হয়েছে। এই প্রসঙ্গেও হাট ব্যবসায়ীরা জানান, কোলে মার্কেট কোথায় বসে?‌ এনআরএসের ঠিক বিপরীতেই। হাওড়া হাসপাতালের পাশে এই হাট বসে বলে বলা হয়। কিন্তু হাওড়া হাসপাতালের গেট তো বঙ্কিম রোডের দিকে। আর হাওড়া হাসপাতালের পিছনের দিকে এই হাট বসে। প্রশাসনিক আধিকারিকদের সম্মান করি। রাজ্য সরকারকেও সম্মান করি। হাটের উপর যেন বারবার বিধিনিষেধ চাপানো না হয়।

বন্ধ করুন