বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বানারহাটে এখনও দুয়ারে রেশন যাচ্ছে না কেন? ক্ষুব্ধ খোদ মন্ত্রী
রেশন  (HT Photo)
রেশন  (HT Photo)

বানারহাটে এখনও দুয়ারে রেশন যাচ্ছে না কেন? ক্ষুব্ধ খোদ মন্ত্রী

রাজ্যের মন্ত্রী জানান, দ্রুত পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।অনগ্রসর কল্যাণ ও আদিবাসী উন্নয়ন দফতর থেকে যতটা সাহায্য করার করব।

‌মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে শুরু হয়েছে দুয়ারে রেশন প্রকল্প।কিন্তু ভারত–ভুটান সীমান্ত লাগোয়া বানারহাটের বাসিন্দারা এখনও দুয়ারে রেশন প্রকল্প থেকে বঞ্চিত।এবার কেন এই প্রান্তিক এলাকার মানুষরা সরকারি প্রকল্প থেকে বঞ্চিত হলেন, তাঁর কৈফিয়েত চাইলেন অনগ্রসর কল্যাণ ও আদিবাসী উন্নয়ন দফতরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী বুলু চিক বরাইক।স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ পেয়েই ঘটনাস্থল থেকে ফোন করে বিডিও–কে ধমক দিলেন তিনি।

বুধবার ভারত–ভুটান সীমান্ত লাগোয়া বানারহাট ব্লকের চামুর্চি পঞ্চায়েত এলাকা পরিদর্শন করতে আসেন রাজ্যের মন্ত্রী বুলু চিক বরাইক। মন্ত্রীকে কাছে পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযোগ করেন, তাঁরা একশ দিনের কাজ, দুয়ারে রেশন-সহ একাধিক সরকারি প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন না।গ্রামবাসীদের কাছে অভিযোগ শুনেই ক্ষুব্ধ হন মন্ত্রী। সঙ্গে সঙ্গে ফোন করেন বিডিও প্রহ্লাদ বিশ্বাসকে।কেন এখানকার মানুষরা সরকারি সুবিধা পাচ্ছেন না, তা জানতে চান তিনি।রাজ্যের মন্ত্রী জানান, দ্রুত পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।অনগ্রসর কল্যাণ ও আদিবাসী উন্নয়ন দফতর থেকে যতটা সাহায্য করার করব।এই প্রসঙ্গে অবশ্য বিডিও–র কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি।

এর আগে ধুপগুড়িতে গ্রামীণ হাসপাতাল পরিদর্শনে এসেছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী।গ্রামীণ হাসপাতাল পরিদর্শনে এসে সেখানকার পরিকাঠামো দেখে রীতিমতো ক্ষুব্ধ হন তিনি।ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক সুরজিত ঘোষকে ডেকে ধমকও দেন তিনি।রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর দুয়ারে রেশন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে।করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী যাতে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে যায়, সেই কথা মাথায় রেখেই এই প্রকল্প শুরু করেছে রাজ্য সরকার।কিন্তু এখনও রাজ্যে অনেকেই এই প্রকল্পের সুবিধা থেকে বঞ্চিত।

বন্ধ করুন