বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পণের দাবি না মেটালেই অত্যাচার, বধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে
পণের দাবি না মেটালেই অত্যাচার, বধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে
পণের দাবি না মেটালেই অত্যাচার, বধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে

পণের দাবি না মেটালেই অত্যাচার, বধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে

মেয়েটির পরিবারের অভিযোগ, বিভিন্ন সময়ে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তাঁর কাছ থেকে টাকা পয়সা সহ নানা জিনিস দাবি করত।

এবার গৃহবধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ উঠল স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজনদের বিরুদ্ধে। নৃশংস এই ঘটনাটি ঘটেছে ক্যানিং থানার গোপালপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় গলাডহরা গ্রামে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক স্বামী ঝন্টু সর্দার-সহ শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। এই ঘটনায় এলাকায় তীব্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের তরফে জানা গিয়েছে, বিয়ের পর থেকেই গৃহবধূর ওপর অত্যাচার চালানো হত। প্রীতি সর্দারের পরিবারের সদস্যদের দাবি, স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি সবাই তাঁদের মেয়ের ওপর অত্যাচার চালাত। ক্রমশই এই শারীরিক নির্যাতনের মাত্রা বাড়ছিল। এদিন প্রীতিকে মারধর করে তাঁর গায়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় তাঁকে দেখতে পান প্রতিবেশীরা। এই বিভৎস দৃশ্য দেখে ছুটে আসেন তাঁরা। স্থানীয় বাসিন্দারাই যুবতীকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানেই চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

মেয়েটির পরিবারের অভিযোগ, বিভিন্ন সময়ে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তাঁর কাছ থেকে টাকা পয়সা-সহ নানা জিনিস দাবি করত। সেই দাবি না মেটালেই মেয়েটির উপর অত্যাচার করা হত। জানা গিয়েছে, বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কের প্রতিবাদ করার জন্যই প্রীতি সর্দারের ওপর নির্যাতন করতে শুরু করেছিলেন তাঁর স্বামী। এর আগে খাস কলকাতার বুকে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক রয়েছে এই সন্দেহে স্ত্রীকে খুন করার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। স্ত্রীকে খুন করে থানায় আত্মসমর্পণ করেছিলেন স্বামী। যখন এই খুনের ঘটনাটি ঘটে, তখন তাঁর ১৮ বছরের ছেলে বাড়িতে ছিল না।

বন্ধ করুন