বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ‌‘‌উনি ওনার যৌন লালসা মেটানোর প্রস্তাব দিয়েছিলেন’‌, ব্রাত্যকে চিঠি শিক্ষিকার
বিকাশ ভবন৷ ছবি: এএনআই।
বিকাশ ভবন৷ ছবি: এএনআই।

‌‘‌উনি ওনার যৌন লালসা মেটানোর প্রস্তাব দিয়েছিলেন’‌, ব্রাত্যকে চিঠি শিক্ষিকার

  • বোলপুরের ওই শিক্ষিকা স্কুলেরই প্রধানশিক্ষকের বিরুদ্ধে তাঁর অভিযোগ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রীকে।

এবার শিক্ষিকাকে কুপ্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগ উঠল। এমনকী এই অভিযোগ উঠল স্কুলের প্রধানশিক্ষকের বিরুদ্ধে। এই বিস্ফোরক অভিযোগ করে তিনি থেমে থাকেননি। বরং চিঠি লিখে বিষয়টি তিনি জানিয়ে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে। এই ঘটনা সামনে আসতেই এখন ঢি ঢি পড়ে গিয়েছে। বোলপুরের ওই শিক্ষিকা স্কুলেরই প্রধানশিক্ষকের বিরুদ্ধে তাঁর অভিযোগ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রীকে।

ঠিক কী অভিযোগ করেছেন শিক্ষিকা?‌ তিনি অভিযোগ করেন, ‘‌আমাদের প্রধানশিক্ষক একেবারেই নারীদের সম্মান করেন না। আমার উপর একটা অন্য নজর ওনার। উনি ওনার যৌন লালসা মেটানোর প্রস্তাব দিয়েছিলেন। এমনকী উনি আমাকে কুপ্রস্তাব দিতেন। এই প্রস্তাব আমি যেহেতু মেনে নিইনি, তাই উনি নানাভাবে আমাকে হেনস্তা করেন। কিন্তু কোনওভাবেই আমাকে ওনার পথে চালাতে পারেননি। এরপরই উনি স্টাফ রুমে সিসিটিভি লাগান। ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার মাধ্যমে উনি আমাকে সবসময় নজরদারি চালান। আমাকে এও বলেছেন, যদি আমি ওনার সঙ্গে আলাদাভাবে দেখা করি বাইরে, তা হলে উনি আমাকে নানা সুযোগ দেবেন।’‌

এই অভিযোগ সামনে আসতেই পাল্টা প্রধানশিক্ষক বলেন, ‘‌এই ধরনের কোনও ঘটনা ঘটেনি। সিসিটিভি গোটা স্কুলেই লাগানো রয়েছে। আমার ঘরে তো রয়েছেই, স্টাফ রুমে, ক্লাস রুমেও রয়েছে। সুতরাং নির্দিষ্ট কোনও ক্যামেরা দিয়ে কোনও শিক্ষিকাকে দেখার প্রশ্নই নেই। কেউ যদি দাবি করেন আমি কুপ্রস্তাব দিয়েছি, তা হলে তা তো প্রমাণেরও বিষয় থাকে।’‌

কী লেখা হয়েছে চিঠিতে?‌ শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে লেখা চিঠিতে শিক্ষিকা লিখেছেন, ‘আমার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দ্বারা আমি নানাভাবে নির্যাতিতা। উনি বহুদিন ধরে আমাকে কুপ্রস্তাব দিচ্ছেন। তাতে আমি রাজি না হওয়ায় প্রধানশিক্ষকের ক্ষমতার অপব্যবহার করে আমাকে প্রতিপদে হেনস্তা ও অপদস্থ করেন। আমি সবসময় আতঙ্কে থাকি।’

বন্ধ করুন