বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > তোর্সা নদীতে হলুদ সতর্কতা জারি, নদীগর্ভে ভেসে গেল বাঁধ, আতঙ্কে মানুষজন
নদীগর্ভে তলিয়ে যায় জমি।

তোর্সা নদীতে হলুদ সতর্কতা জারি, নদীগর্ভে ভেসে গেল বাঁধ, আতঙ্কে মানুষজন

  • এখানের এলাকার বাসিন্দারা জানান, গত বছর প্রায় ৩৫০ মিটার তোর্সা নদীর বাঁধ ভেঙে গিয়েছিল। কিন্ত সেচ দফতর থেকে মেরামতের কাজ হয়নি। বাঁধ নির্মাণ হয়নি। শুক্রবার রাতে নতুন করে ৫০ মিটার বাঁধ নদী গর্ভে চলে গিয়েছে। আতঙ্কে রয়েছে এলাকবাসী।

দিনভর তিস্তা এবং জলঢাকা নদীর অসংরক্ষিত এলাকায় জারি ছিল হলুদ সঙ্কেত। তিস্তার ক্ষেত্রে তিস্তা ব্যারেজ থেকে বাংলাদেশের দিকে অসংরক্ষিত এলাকায় এবং জলঢাকা নদীর এনএইচ ৩১ থেকে মাথাভাঙা পর্যন্ত নদীর অসংরক্ষিত এলাকাতে ছিল হলুদ সতর্কতা। এবার তোর্সা নদীতে হলুদ সতর্কতা জারি হল। ভুটান পাহাড়ে অবিরাম বৃষ্টি ও এলাকায় বৃষ্টির ফলে ফুলেফেঁপে উঠেছে তোর্সা নদী।

বিষয়টি ঠিক কী ঘটেছে?‌ স্থানীয় সূত্রে খবর, নাগাড়ে বৃষ্টির জন্য নদীর জল ঢুকে তুফানগঞ্জ মহকুমার বিভিন্ন জায়গায় অনেক মানুষ জলবন্দি হয়ে পড়েছেন। তুফানগঞ্জ–১ ব্লকের রায়ডাক নদীর উল্লার খেয়াঘাটে পারাপারের একমাত্র বাঁশের সাঁকোটি ভেসে গিয়েছে। কামাত–ফুলবাড়িতে রায়ডাকের ভাঙন শুরু হয়েছে। ঘরবাড়ি নদীবক্ষে চলে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছেন বাসিন্দারা। আর জয়ন্তী নদীর জল ঢুকেছে যশোডাঙায়। এই পরিস্থিতিতে দলসিংপাড়া রণবাহাদুর বস্তি এলাকায় তোর্সা নদীর ৫০ মিটার বাঁধ ভেঙ্গে গেল। যা নিয়ে বড় আশঙ্কা তৈরি হল।

আর কী অবস্থা চারিদিকের?‌ ফালাকাটা ও সোনাপুরের মাঝে ৩১ জাতীয় সড়কে চর তোর্সা, বুড়ি তোর্সা এবং সঞ্জয় নদীর অস্থায়ী ডাইভারশন জলে ডুবে যাওয়ায় আলিপুরদুয়ার–ফালাকাটার মধ্যে যান চলাচল বন্ধ ছিল। ইতিমধ্যে তোর্সা নদীর অসংরক্ষিত এলাকা দিয়ে হু হু করে জল প্রবেশ করেছে। তোর্সা নদীর স্রোতে নীলপাড়া জঙ্গলের বহু মূল্যবান গাছ নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে। আলিপুরদুয়ার থেকে সমস্ত যানবাহন পুণ্ডিবাড়ি ও ঘোকসডাঙা দিয়ে ঘুরপথে ফালাকাটায় যাচ্ছে। হাউড়ি, বাংরি, তিতি–সহ কয়েকটি পাহাড়ি ঝোরা উত্তাল হওয়ায় মাদারিহাট থেকে ২২ কিমি দূরে টোটোপাড়া বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে। টানা বৃষ্টিতে জেলার তোর্সা, রায়ডাক, ডিমা, পানা, বাসরা–সহ ছোট বড় সব নদীতেই জল বাড়ছে।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ এখানের এলাকার বাসিন্দারা জানান, গত বছর প্রায় ৩৫০ মিটার তোর্সা নদীর বাঁধ ভেঙে গিয়েছিল। কিন্ত সেচ দফতর থেকে মেরামতের কাজ হয়নি। বাঁধ নির্মাণ হয়নি। শুক্রবার রাতে নতুন করে ৫০ মিটার বাঁধ নদী গর্ভে চলে গিয়েছে। আতঙ্কে রয়েছে এলাকবাসী। পঞ্চায়েত সদস্য রীনা দর্জি জানান, বারংবার সেচ দফতরের কাছেই বাঁধ মেরামত জন‍্য আবেদন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে যাতে কেউ তোর্সা নদীর আশেপাশে না যায়।

বন্ধ করুন