বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > সন্তানস্নেহে বড় করেছিলেন বিধায়ক, তাঁরই বাড়ি থেকে মিলল যুবকের ঝুলন্ত দেহ
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

সন্তানস্নেহে বড় করেছিলেন বিধায়ক, তাঁরই বাড়ি থেকে মিলল যুবকের ঝুলন্ত দেহ

  • বুধবার রাতে জয়ন্তবাবুর দক্ষিণ ২৪ পরগনার চুনাখালির বাড়ি থেকে যুবকের ঝুলন্ত দেহ মেলে। মিলেছে একটি সুইসাইড নোট।

তৃণমূল বিধায়কের বাড়ি থেকে মিলল যুবকের ঝুলন্ত দেহ। লাবণ্য হালদার নামে ওই যুবক গোসাবার তৃণমূল বিধায়ক জয়ন্ত নস্করের বাড়িতেই থাকতেন। বুধবার রাতে জয়ন্তবাবুর দক্ষিণ ২৪ পরগনার চুনাখালির বাড়ি থেকে যুবকের ঝুলন্ত দেহ মেলে। মিলেছে একটি সুইসাইড নোট। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, প্রণয় ঘটিত বিবাদের জেরে আত্মঘাতী হয়েছেন ওই যুবক। 

বিধায়ক জানিয়েছেন, বাম জমানায় সিপিএম আশ্রিত দুষ্কৃতীরা লাবণ্যর মা ও বাবাকে হত্যা করে। তখন যুবকের বয়স ছিল ১৫। এর পর থেকে লাবণ্যকে নিজের বাড়িতেই বড় করছিলেন জয়ন্তবাবু। কলকাতায় কলেজে পড়াশুনো করতেন তিনি। থাকতেন সোনারপুরে। সম্প্রতি লকডাউন শুরু হওয়ায় সোনারপুর থেকে চুনাখালির বাড়িতে ফেরেন তিনি। 

বুধবার রাতে পরিচারিকা তাঁকে খাবার দিতে গিয়ে সাড়া পাননি। দরজা ঠেলে ঢুকে দেখেন, গলায় ফাঁস দিয়ে ছাদ থেকে ঝুলছেন যুবক। এর পর খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। গোসাবা থানার পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। 

পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, ঘর থেকে মিলেছে একটি সুইসাইড নোট। তাতে প্রণয়ঘটিত কারণের উল্লেখ রয়েছে। তবে ওই সুইসাইড নোট যুবকেরই লেখা কি না তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

জয়ন্তবাবু জানিয়েছন, ‘ওকে নিজের ছেলের মতো বড় করেছিলাম। কেন এমন কাজ করল জানি না।’

 

বন্ধ করুন