বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অধ্যাপিকাকে হেনস্থা, শ্লীলতাহানির অভিযোগ! পথকুকুরদের খাওয়ানো ঘিরে চাঞ্চল্য
পথকুকুরদের খাওয়ানো ঘিরে বচসা কলকাতায়, অধ্যাপিকাকে হেনস্থার অভিযোগ। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

অধ্যাপিকাকে হেনস্থা, শ্লীলতাহানির অভিযোগ! পথকুকুরদের খাওয়ানো ঘিরে চাঞ্চল্য

  • অধ্যাপনার পাশাপাশি বহু বছর ধরেই ওই অধ্যাপিকা পথ কুকুরদের সেবা করে আসছেন বলে খবর।

শহর কলকাতার বুকে এক অধ্যাপিকাকে অশ্রাব্য গালিগালাজ করা সহ শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, চিৎপুরের উমাকান্ত সাহা লেনে। সেখানে লেডি ব্রেবর্ন কলেজের এক অধ্যাপিকাকে শ্লীলতাহানি করা হয় বলে অভিযোগ। ঘটনার কেন্দ্রে রয়েছে পথ কুকুরকে খাওয়ানোর বিষয়টি। বিষয়টি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হওয়া ছাড়াও ওই অধ্যাপিকা পুলিশের দ্বারস্থ হন। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

অধ্যাপনার পাশাপাশি বহু বছর ধরেই ওই অধ্যাপিকা পথ কুকুরদের সেবা করে আসছেন বলে খবর। উমাকান্ত সাহা লেনের পুরনো বাসিন্দা হলেও মাত্র কয়েক বছর আগে সেখান থেকে অন্যত্র চলে গিয়ে বসবাস করেন অধ্যাপিকা। জানা যায়, অধ্যাপিকার স্বামীও একজন পশুপ্রেমী। সারমেয়দের সেবায় তাঁরা বহু দিন ধরেই নানান কল্যাণমূলক কাজ করে চলেছেন। এদিকে, রবিবার বিকেলে উমাকান্ত সাহা লেনে এই পরিবারের সঙ্গে ঘটে যায় এক অনভিপ্রেত ঘটনা। এলাকায় পথ কুকুরদের খাওয়াতে যান অধ্যাপিকা। সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্বামী ও সন্তান। তখনই এলাকায় বিশ্বপ্রিয় রায় নামে এক যুবক অধ্যাপিকাকে লক্ষ্য করে কটূক্তি করে বলে অভিযোগ। চলতে থাকে অশ্রাব্য গালিগালাজ। এরপর রাস্তায় বেরিয়ে অধ্যাপিকা ও তাঁর পরিবারকে কুকুরদের খাবার দিতে বারণ করে বিশ্বপ্রিয়। এরপরই দুই পক্ষের বচসা শুরু হয়। অধ্যাপিকার অভিযোগ তাঁর স্বামীকে এই সময় ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেওয়া হয়। এমনকি অধ্যাপিকার গায়ের শাল টেনে খুলে দেওয়া হয়, মুচকে দেওয়া হয় হাত। গোটা ঘটনার ভিডিয়ো করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হন অধ্যাপিকা। দ্বারস্থ হন চিৎপুর থানার।

এরপরই , শ্লীলতাহানির দায়ে অভিযুক্ত ওই যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপরই নড়েচড়ে বসে চিৎপুর থানার পুলিশ। অধ্যাপিকা এমন ঘটনার জেরে অভিযুক্তের কঠোর শাস্তির দাবি করেছেন। আজ অভিযুক্তকে তোলা হচ্ছে আদালতে। ঘটনা ঘিরে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে ভাইরাল হতে থাকে এই ভিডিয়ো।

 

 

বন্ধ করুন