বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘সরু রাস্তায়’ মানুষ হাঁটবে কোথায়? কলকাতায় সাইকেল লেনের প্রস্তাব খারিজ পুলিশের
‘সরু রাস্তায়’ মানুষ হাঁটবে কোথায়? কলকাতায় সাইকেল লেনের প্রস্তাব খারিজ পুলিশের (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)
‘সরু রাস্তায়’ মানুষ হাঁটবে কোথায়? কলকাতায় সাইকেল লেনের প্রস্তাব খারিজ পুলিশের (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)

‘সরু রাস্তায়’ মানুষ হাঁটবে কোথায়? কলকাতায় সাইকেল লেনের প্রস্তাব খারিজ পুলিশের

  • পর্যাপ্ত সংখ্যক বাস-গাড়ির অভাবে গত জুনে শহরের নির্ধারিত রাস্তায় সাইকেল চালানোর অনুমতি দিয়েছে রাজ্যের মন্ত্রিসভা।

বাড়বে পথচলতি মানুষের ঝুঁকি। এমনই যুক্তি দেখিয়ে কলকাতা ডেভলেপমেন্ট অথরিটির (কেএমডি) প্রস্তাব খারিজ করে দিল কলকাতা ট্র্যাফিক পুলিশ।

আরও পড়ুন : বাংলা ও কেরালায় ফাঁস আল কায়দা মডিউল, NIA-এর জালে ৯ জঙ্গি

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যে যাতায়াতের ক্ষেত্রে আমজনতাকে নাকাল হতে হচ্ছিল। পর্যাপ্ত সংখ্যক বাস-গাড়ির অভাবে গত জুনে শহরের নির্ধারিত রাস্তায় সাইকেল চালানোর অনুমতি দিয়েছে রাজ্যের মন্ত্রিসভা। তারইমধ্যে পুলিশের কাছে নির্দিষ্ট সাইকেল লেন তৈরির প্রস্তাব পাঠিয়েছিল কেএমডি।

আরও পড়ুন : পাড়ার কাকিমার মতো দেখতে বলেই ‘Act of God’ উক্তির জন্য পরিহাস করা হচ্ছে- নির্মলা সীতারামন

তবে শুক্রবার ট্র্যাফিক পুলিশের এক শীর্ষকর্তা জানান, শহরের বর্তমান যে পরিকাঠামো, তা নির্দিষ্ট সাইকেল লেন তৈরির পক্ষে সহায়ক নয়। রাস্তার ‘উন্নতি’ ছাড়া সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হওয়া দুষ্কর। তিনি বলেন, ‘এই মুহূর্তে শহরে সাইকেল লেন তৈরি করা সম্ভব নয়। শহরের রাস্তার বাঁ-দিক নির্ধারিত থাকে বাসের জন্য। যদি সাইকেল লেন তৈরি করতে হয়, তা একেবারে বাঁ-দিকে ঘেঁষে হতে হবে। তার ফলে বাসগুলিকে রাস্তার মাঝে সরিয়ে দিতে হবে। তাহলে যাত্রীরা কোথায় দাঁড়াবেন? এমনিতেই রাস্তায় অসংখ্য গাড়ি চলাচল করে। শহরের পরিকাঠামো খুব বেশি উন্নত না হলেও প্রতিদিনই রাস্তায় গাড়ির বহর বাড়ছে।’

আরও পড়ুন : মুখ ঘুরিয়ে স্থানীয় বাজারে এল বাংলাদেশগামী ট্রাক, খুচরো বাজারে কমল পেঁয়াজের দাম

তাঁর মতে, ফুটপাথের বেশিরভাগ অংশ এমনিতেই হকারদের দখলে রয়েছে। তার ফলে পথচলতি মানুষকে বাধ্য হয়ে রাস্তায় হাঁটতে হয়। তার মধ্যে আবার নির্দিষ্ট সাইকেল লেন তৈরি হলে পথচলতি মানুষের সুরক্ষা নিয়ে উদ্বেগ আরও বাড়বে। ব্যাহত হবে গাড়ি চলাচল। ট্র্যাফিক পুলিশের ওই শীর্ষকর্তা কথায়, ‘শহরের ফুটপাথ দখল করে রেখেছেন হকাররা। তার জেরে মানুষকে রাস্তার বাঁ-দিক দিয়ে হাঁটতে হয়। সঙ্গে আছে গাড়ি ও বাইকের পার্কিং জোন। সাইকেল লেনের কথা তো ভুলে যান, ভালোভাবে হাঁটার জন্যই পর্যাপ্ত পরিসর নেই। যদিও পথচলতি মানুষের কিছু হয়ে যায়, তখন ট্র্যাফিক পুলিশকে দায়ী করা হবে।’

আরও পড়ুন : কোন ৫ টি রেকর্ড তৈরি হতে পারে এবার? নজিরের মুখে ধোনি-কোহলিও

এমনিতেই শহরের একাংশে সাইকেল চালানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে সেন্ট্রাল অ্যাভনিউ ও রাসবিহারী অ্যাভিনিউয়ের মতো রাস্তায় আবার রাত ১১ টা থেকে সকাল সাতটা পর্যন্ত সাইকেল চালানো যায়।

আরও পড়ুন : 'মনে হবে, আমি কেন খেলছি না?', অভিমানী IPL-এ ব্রাত্য মনোজের

কেএমডিএয়ের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ট্র্যাফিক পুলিশের জবাব মিলেছে। তবে বিকল্প কোনও পরিকল্পনা করা হচ্ছে কিনা, সে বিষয়ে কিছু জানাননি তিনি। ওই আধিকারিকের কথায়, ‘প্রস্তাব খারিজ করার কারণ দিয়েছে ওরা (পুলিশ)। নির্দিষ্ট সাইকেল লেনের ফলে শহরের কয়েকটি অংশে রাস্তার পরিসর কমে যেতে পারে এবং ট্র্যাফিকের অবস্থা খারাপ হতে পারে।’

বন্ধ করুন