বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ভুরি ভুরি অভিযোগ তবু ১৮০০ কোটি খরচ স্বাস্থ্যসাথী খাতে, উপকৃত ১৪ লক্ষ

ভুরি ভুরি অভিযোগ তবু ১৮০০ কোটি খরচ স্বাস্থ্যসাথী খাতে, উপকৃত ১৪ লক্ষ

স্বাস্থ্যসাথী কার্ড হাতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

সূত্রের খবর গত অর্থবর্ষের তুলনায় এবার খরচ প্রায় ৩০০ কোটি টাকা বেশি।

স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিয়ে একেবারে ভুরি ভুরি অভিযোগ। তার মধ্যে সামনে এসেছে স্বাস্থ্যসাথী বাবদ রাজ্যের বিপুর খরচের হিসাব। সূত্রের খবর গত এক বছরে এই খাতে ব্যয় হয়েছে ১৮০০ কোটি টাকা। গত অর্থবর্ষের তুলনায় এই খরচ প্রায় ৩০০ কোটি টাকা বেশি। চলতি অর্থবর্ষে প্রায় ১৪ লক্ষ মানুষ এই স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের জেরে উপকৃত হয়েছেন। এদিকে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, প্রায় ২ কোটি বাসিন্দা এই প্রকল্পের উপভোক্তার তালিকায় রয়েছেন। চিকিৎসা বাবদ দৈনিক প্রায় ৫ কোটি খরচ হচ্ছে রাজ্যের। পরিস্থিতি এমন জায়গায় যাচ্ছে মাঝেমধ্যে সেই গন্ডি ৬ কোটিও ছাপিয়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন গড়ে প্রায় চার হাজার রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়ে এই কার্ডের সুবিধা পাচ্ছেন। 

এদিকে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা সত্ত্বেও একাধিক নার্সিংহোম চিকিৎসা করানোর ক্ষেত্রে নানা আপত্তি তুলছিল বলে অভিযোগ ওঠে। এরপরই এনিয়ে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া শুরু করে স্বাস্থ্য দফতর। তারপরে অভিযোগ অনেকটাই কমেছে। তবে এখনও স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নিয়ে বিক্ষিপ্তভাবে কিছু অভিযোগ ওঠে। তবে স্বাস্থ্য দফতরের মতে হাজার হাজার মানুষ রোজ স্বাস্থ্য সাথীকার্ডের সুবিধা পাচ্ছেন। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাজ্যের কোষাগারে যখন টান পড়ে তখনও স্বাস্থ্য সাথী খাতে কাটছাঁট করতে চায়নি রাজ্য। এসবের জেরে স্বাস্থ্য সাথী খাতে খরচ কমা তো দূরের কথা, উলটে বেড়েছে অনেকটাই। 

 

বন্ধ করুন