বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > 'জয় হিন্দুস্তান', স্বার্থ ভুলে এক হওয়ার বার্তা, একুশের মঞ্চে ২৪-এ নজর মমতার
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি সৌজন্যে ফেসবুক)
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি সৌজন্যে ফেসবুক)

'জয় হিন্দুস্তান', স্বার্থ ভুলে এক হওয়ার বার্তা, একুশের মঞ্চে ২৪-এ নজর মমতার

  • ‘জয় বাংলা’র পাশাপাশি এদিন মমতার গলায় ছিল ‘জয় হিন্দুস্তান’ স্লোগান। বিজেপি বিরোধী শক্তিগুলিকে এক হওয়ার ডাক দিলেন তিনি।

একুশের মঞ্চ থেকে জাতীয় পর্যায়ে তৃণমূলকে তুলে ধরতে চেয়ে এদিন শরদ পাওয়ার, চিদম্বরমদের কাছে বড় বার্তা রাখলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একুশের নির্বাচনী প্রচারে যেই নেত্রীর গলায় শুধু 'জয় বাংলা' স্লোগান শোনা যেত, সেই নেত্রী গলায় এদিন শোনা যায় 'জয় হিন্দুস্তান' স্লোগানও। বিজেপি বিরোধী শক্তিগুলিকে এক হওয়ার ডাক দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী লোকসভা ভোটকে সামনে রেখে এখন থেকেই সমস্ত বিরোধী দলকে জোট বাঁধার আহ্বান জানান মমতা।

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, 'জয় বাংলা, জয় হিন্দুস্তান, সকল জাতীয় এবং স্থানীয় নেতাদের ধন্যবাদ। শরদ পাওয়ারজির কাছে কৃতজ্ঞ। সুপ্রিয়া শুলে আছেন। পি চিদম্বরমজি আছেন, দিগ্বিজয় সিংজি আছেন, সমাজবাদী পার্টির রাম গোপাল যাদব, জয়া বচ্চন, আরজেডির মনোজ ঝা। সব দলের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।' পাশাপাশি এদিন সব বিরোধী নেতাদের প্রতি মমতা আহ্বান জানান যাতে ২৭, ২৮, ২৯ জুলাইয়ের মধ্যে যেকোনও একটি দিনে বৈঠক করতে পারেন বিরোধী দলের নেতারা। দেশে কী হচ্ছে, তা নিয়ে আলোচনা করতে চান তৃণমূল সুপ্রিমো।

এদিন একুশের মঞ্চে দাঁড়িয়ে মমতা দাবি করেন যে ভোট পরবর্তী হিংসা হয়নি বাংলায়। তিনি বলেন, 'কয়েকজন বিজেপি নেতাকে মানবাধিকার কমিশনের লোক বানিয়ে পাঠিয়েছে। আমাদের ফোন ট্যাপ। পেগাসাস, ভয়ঙ্কর। ২০২৪ সালে কী হবে কে জানে। আমার ইচ্ছে হলে শরদ পাওয়ার বা চিদম্বরমের সঙ্গে কথা বলতে পারি না। গরিবকে টাকা নিয়ে দিয়ে গোয়েন্দাগিরিতে টাকা খরচ। পেগাসাসের নাম করছে সবার ফোন ট্যাপ।'

এরপর তৃণমূল সুপ্রিমো আরও বলেন, 'আমাদের ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। আমাদের দেশকে বাঁচাতে হবে। বাকি রাজ্যদের বলব, নিজেদের দলকে বোঝান। একসঙ্গে কাজ করতে হবে। রোগ সারতে পারে। তবে সময়ে চিকিত্সা করাতে হবে। আমি আগামী সপ্তাহে দিল্লিতে গিয়ে বিরোধী দলনেতাদের সঙ্গে দেখা করতে চাই। খেলা হয়েছে, খেলা আবার হবে। যতদিন বিজেপিকে দেশ থেকে বিতারিত না করতে পারছি ততদিন রাজ্যে রাজ্যে খেলা হবে। নষ্ট করার মতো সময়নেই। ২০২৪ সালের আগে অনেক দেরি। তবে নির্বাচনের আগে জোট করে কিছু হবে না।'

বন্ধ করুন